মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রংপুরের কাউনিয়া নদীতে নিখোঁজের ৮ দিন পর লাশ উদ্ধার

রংপুরের কাউনিয়া নদীতে নিখোঁজের ৮ দিন পর লাশ উদ্ধার

অল নিউজ ডেস্ক :
রংপুরের কাউনিয়া উপজেলায় তিস্তা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজের আটদিন পর শামীম মিয়া কালু নামে বাসের এক হেলপারের লাশের সন্ধান পাওয়া গেছে। শামীম ঢাকার মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের আজম মিয়ার পুত্র।

 

কাউনিয়ার টেপামধুপুর ইউনিয়নের চর গনাই গ্রামে তিস্তা নদীতে গোসল করতে নেমে স্রোতের টানে পানিতে ডুবে ঢাকার সিটিং সার্ভিস মৌমিতা পরিবহন নামে বাসের হেলপার শামীম মিয়া কালু।

 

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার টেপামধুপুর ইউনিয়নের বেশকিছু গার্মেন্টস কর্মী ঈদের আগের দিন ঢাকা মোহাম্মদপুর থেকে একটি রিজার্ভ বাস নিয়ে গ্রামে আসেন এবং ঈদের ছুটি শেষে আবার তারা ওই বাসে করে ঢাকায় যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সরকার ২৩ জুলাই থেকে আবারো কঠোর লকডাউন ঘোষণা করলে ঈদে গ্রামে আসা গার্মেন্টস কর্মীরা ও বাসের লোকজন গ্রামে আটকা পড়ে যায়।

 

 

গত ২৬ জুলাই বাসটির চালক, কনন্ট্রাকটার ও হেলপার স্থানীয় গোলজার বাজারে বাস রেখে তিস্তা নদীতে দুপুরে গোসল করতে নামে। নদীর স্রোতে তিনজনের মধ্যে হেলপার শামীম মিয়া পানিতে ডুবে নিখোঁজ হয়ে যায়। অপর দুজন সাঁতরিয়ে নদীর কিনারায় উঠতে সক্ষম হয়। পরে রংপুর ফায়ার সার্ভিসের ডুবরি দল সাড়ে চার ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে হেলপারের লাশ উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করেন।

 

কিন্তু মঙ্গলবার সকালে ওই নিখোঁজ হেলপারের লাশ ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ৭০০ গজ দূরে ভাটিতে চরে আটকে থাকতে দেখেন স্থানীয় এক নৌকার মাঝি। পরে স্থানীয় লোকজন তার লাশ চর থেকে উদ্ধার করেন।

 

টেপামধুপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম হেলপার শামীম মিয়া তিস্তা নদীতে গোসলে নেমে পানিতে ডুবে নিখোঁজ হওয়ার লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

 

 

কাউনিয়া থানার এসআই মাসুদার রহমান জানান, স্থানীয় লোকজন লাশটির প্যান্ট দেখে নিশ্চিত হন এটি নিখোঁজ হওয়া বাসের হেলপারের লাশ।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com