শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:২৫ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদীতে স্বেচ্ছাসেবকলীগ থেকে রাজাকারের ছেলেকে অব্যাহতি প্রদান

ঈশ্বরদীতে স্বেচ্ছাসেবকলীগ থেকে রাজাকারের ছেলেকে অব্যাহতি প্রদান

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি :
১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুুদ্ধের বিরোধী রাজাকারের ছেলে স্বেচ্ছাসেবকলীগে! ঈশ্বরদী শহর জুড়ে আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে তীব্র আলোচনা এবং ক্ষোভ প্রকাশের কারণে অবশেষে কমিটি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হলো রাজাকারের সেই ছেলে খাইরুল ইসলামকে।
গতকাল (দুপুরে) সম্প্রতি ঘোষিত ঈশ্বরদী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক কমিটির সুপারিশে পাবনা জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি ও সম্পাদক স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবকলীগ ঈশ^রদী শাখার আহবায়ক মাসুদ রানা এবং যুগ্ন আহবায়ক সাকাওয়াত হোসেন সজিব মালিথা কালের কন্ঠকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

আওয়ামীলীগ ও মুক্তিযোদ্ধাদের সুত্রে জানা যায়, সুদীর্ঘ ১২ বছর পর গত ৩১ জুলাই তিন মাসের জন্য ঈশ্বরদীতে স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। মাসুদ রানাকে আহবায়ক ও সাকাওয়াত হোসেন সজিব মালিথাকে যুগ্ন আহবায়ক এবং খাইরুল ইসলামকে সদস্য করে ২০ সদস্যের কমিটি প্রকাশ করা হয়েছে। দলে অনুপ্রবেশের বিষয়টি খোঁজ নিতে গিয়ে জানা যায়, সদস্য খাইরুল ইসলাম ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী ঈশ^রদীর চিহিৃত রাজাকার শহরের মশুড়িয়াপাড়ার (ভাটাপাড়া) এলাকার মৃত আবুল হোসেন রাজাকারের ছেলে। বিষয়টি নিয়ে দলের মধ্যে হৈচৈ পড়ে যায়। তাঁরা বিষয়টি ঈশ্বরদী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র ইছাহক আলী মালিথা, স্থানীয় এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান বিশ্বাসের দৃষ্টিতে এনে প্রতিকার দাবী করেন। একই সঙ্গে যারা খাইরুল ইসলামের মতো রাজাকারের পরিবারের সদস্যকে আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন সহযোগি সংগঠনে প্রবেশ ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধেও সাংগঠনিকভাবে কঠোর শাস্তি দাবী করা হয়েছে বলেও সুত্রগুলো জানিয়েছেন।

 

স্বেচ্ছাসেবকলীগ ঈশ্বরদী শাখার আহবায়ক মাসুদ রানা কালের কন্ঠকে জানান, কমিটিতে খাইরুল ইসলামের নাম আসায় চরম বিতর্কের সৃষ্টি হয়। পরে তার বিষয়ে জেলা কমিটির নিকট সুপারিশ করা হলে রবিবার খাইরুল ইসলামকে অব্যাহতি প্রদান করে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ পাবনা জেলা কমিটি। আশা করি এখন বিতর্কের অবসান ঘটবে।
স্বেচ্ছাসেবকলীগ ঈশ্বর শাখার আহবায়ক কমিটির যুগ্ন আহবায়ক সাকাওয়াত হোসেন সজিব মালিথা জানান, দীর্ঘদিন পর তড়িঘড়ি করে কমিটি ঘোষণা করায় দলের মধ্যে হাইব্রিডদের অনুপ্রবেশ ঘটেছে। খাইরুল ইসলাম রাজাকার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে জানার পর তাঁকে পাবনা জেলা কমিটির পক্ষ থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।

 

স্বেচ্ছাসেবক লীগ পাবনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন কালের কন্ঠকে জানান, ঈশ^রদী পৌরসভার সাবেক এক মেয়রের সুপারিশে রাজাকারের ছেলে খাইরুল ইসলাম কমিটিতে এসেছে। জেলা কমিটির পক্ষ থেকে সঠিকভাবে যাচাই বাচাই না করে ঈশ্বরদীতে কমিটি দেওয়া আমাদের ভুল হয়েছে। রাজাকারের ছেলে কমিটিতে থাকায় বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। তাই তাকে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।

 

ঈশ্বরদী পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র ইছাহক আলী মালিথা কালের কন্ঠকে জানান, খাইরুল ইসলাম রাজাকার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে। রাজাকারের ছেলে আওয়ামীলীগের সংগঠনে ঠুকে পড়ায় দলের মধ্যে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। এক কুচক্রী দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির লক্ষ্যে এভাবে স্বাধীনতা বিরোধীর ছেলেকে দলে প্রবেশ করিয়েছে। এটা খুবই নিন্দনীয় বলেও মন্তব্য করেন মেয়র ইছাহক আলী মালিথা।

 

স্থানীয় সংসদ সদস্য (এমপি) বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান বিশ্বাস  জানান, শুধু আবুল হোসেন রাজাকারের ছেলে খাইরুল ইসলামই আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশ করেনি।ঈশ্বরদীতে অনেক রাজাকারের ছেলেই আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পদ দখল করেছে। আওয়ামীলীগ থেকে রাজাকার পরিবারের সদস্যদের বহিষ্কার করতে তালিকা প্রণয়ন করার কাজ শুরু করা হয়েছে। দলে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র থাকতে পারবে না বলেও মন্তব্য করেন এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান বিশ্বাস।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com