বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ন

উইকেট শিকার যেন মুস্তাফিজের নেশা

উইকেট শিকার যেন মুস্তাফিজের নেশা

অল নিউজ ডেস্ক :
টাইগার পেসার মুস্তাফিজুর রহমান যেনও ক্যারিয়ারের তুঙ্গে অবস্থান করছেন। ২০১৫ সালের ২৪ এপ্রিল পাকিস্তানের বিপক্ষে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত একমাত্র টি-টুয়েন্টিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমানের। সেই ম্যাচে প্রথমবারের মতো পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টুয়েন্টিতে ৭ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জয় পায় বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে শহীদ আফ্রিদি ও মোহাম্মদ হাফিজের উইকেট শিকার করেন মুস্তাফিজ।

 

 

এর দুই মাস পরই ২০১৫ সালের ১৯ জুন সফরকারি ভারতের বিপক্ষে মুস্তাফিজের একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে। সেই ম্যাচেই তিনি ৫ উইকেট লাভ করেন এবং ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়ে বিশ্ববাসীকে তাক লাগিয়ে দেন। তার পরে দ্বিতীয় ম্যাচেও ভারতের বিপক্ষে ৪৩ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন। জীবনের প্রথম দুই ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে তিনি বিশ্বরেকর্ড গড়েন। ব্রায়ান ভিটোরির পর দ্বিতীয় বোলার হিসেবে একদিনের প্রথম ম্যাচে পাঁচ উইকেট লাভের বিরল কীর্তিগাথা রচনা করেন মুস্তাফিজ। সেই সঙ্গে বিশ্বের একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে তিনি প্রথম দুই ম্যাচে এগারোটি উইকেট লাভ করেন। তিনিই একমাত্র খেলোয়াড় যিনি একদিনের আন্তর্জাতিক এবং টেস্টের অভিষেকে ‘ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ’ পুরস্কার লাভ করেন।

 

খুলনার ছেলে মুস্তাফিজুর রহমানের এমন কীর্তিতে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে আলোচনার ঝড় উঠে। তাকে ঘিরে স্বপ্ন দেখতে শুরু করে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে আবির্ভাবের পর থেকেই সবার নজর কেড়েছেন মুস্তাফিজ। ক্রিকেট দুনিয়ায় ঘরোয়া আসরের অনেকের চাহিদার ক্রিকেটার হয়ে উঠেন বাংলাদেশের বামহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। ইংল্যান্ডে কাউন্টি খেলতে গিয়ে প্রথম ম্যাচেই ৪ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এরপর ইনজুরি কিছুটা পিছিয়ে দিয়েছে ফিজকে।

 

প্রথমবার আইপিএল খেলতে গিয়েই টুর্নামেন্টের সেরা উদীয়মান ক্রিকেটার হয়েছিলেন মুস্তাফিজ। আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ দলে মুস্তাফিজের সতীর্থ হেনরিকস এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘মুস্তাফিজের মতো ক্রিকেটারের সঙ্গে খেলতে পেরে আমি অনেক ভাগ্যবান। তার দারুণ ভেরিয়েশন আছে, যার ফলে বর্তমান ক্রিকেট দুনিয়ায় সে সেরা। আমি মনে করি, সে বিবিএল (বিগ ব্যাশ লিগ) খেলার জন্য আদর্শ।’

 

তবে চলতি আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলতে গিয়ে আবারো আলোচনায় আসেন ফিজ। তার পারফর্ম্যান্সে প্রতিটি ম্যাচেই তাকে একাদশে রাখতে বাধ্য হন নির্বাচক কমিটি।

 

এরপর থেকে নিয়মিত উইকেট শিকার করাই যেনো মুস্তাফিজের নেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনায় মাঝপথে আইপিএল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দেশে এসে জিম্বাবুয়ে সফরেও উজ্জ্বল ছিলেন কাটার মাস্টার। এরপর গতমাসে বাংলাদেশ সফরে আসে অস্ট্রেলিয়া। সেই সফরে অস্ট্রেলিয়া যখন একের পর এক ধরাশায়ী হচ্ছিলো তখন অস্ট্রেলিয়ান এক সাংবাদিক অলরাউন্ডার অ্যাস্টন টার্নারকে প্রশ্ন করেছিলেন, মুস্তাফিজুর রহমান আসলে কী বোলার? স্পিন নাকি পেস? উত্তরে অ্যাস্টন টার্নার বলেই ফেললেন, ‘মুস্তাফিজ যে কি বল করে সেটা আমরা বুঝতেই পারছি না। তার বল যেনো আমাদের কাছে গোলক ধাঁধাঁ।’

 

একমাস পরই বাংলাদেশ সফরে আসে নিউজিল্যান্ড। যার প্রথম ম্যাচে আজ বুধবার ( ১ সেপ্টেম্বর) সফরকারিদের মাত্র ৬০ রানে গুঁড়িয়ে দেয় বাংলাদেশ। যেখানে মুস্তাফিজের শিকার হয় ৩ উইকেট।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com