মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫২ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের সকল হোমিওপ্যাথি ডাক্তারদের প্রতিবাদ ও অবস্থান কর্মসূচী

বাংলাদেশের সকল হোমিওপ্যাথি ডাক্তারদের প্রতিবাদ ও অবস্থান কর্মসূচী

ডা. মো. আব্দুস সালাম (শিপলু) :

সন্মানীত বাংলাদেশের হোমিওপ্যাথগণ, সংগ্রামী সালাম ও শুভেচ্ছা রইল। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বহু ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশ পেয়েছে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান, আর সে সংবিধানের তৃতীয় ভাগ এর মৌলিক অধিকার এর আইনের দৃষ্টিতে সমতা (২৬ অনুচ্ছেদ), জীবন ও ব্যক্তি স্বাধীনতার অধিকার-রক্ষণ (৩২ অনুচ্ছেদ), চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা এবং বাক্-স্বাধীনতা (অনুচ্ছেদ ৩৯), পেশা বা বৃত্তির স্বাধীনতা (অনুচ্ছেদ ৪০) অনুযায়ী নাগরিকদের মৌলিক অধিকার সমূহ রাষ্ট্র নিশ্চিত করবে।

 

 

বাংলাদেশের সরকার স্বীকৃত কোর্সে পাসকৃতরা হোমিওপ্যাথরা ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দ হতে আইনগতভাবে ডা. পদবী ব্যবহার করে আসছে। বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা সহ বিশ্বের প্রায় সকল দেশে সরকার স্বীকৃত হোমিওপ্যাথি কোর্সকৃতরা আইনগতভাবে ডা. পদবী ব্যবহার করে আসছে। ডা. পদবী ব্যবহার হোমিওপ্যাথদের আইনগত বৈধ অধিকার। ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এর সরকারি হোমিওপ্যাথি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড প্রতিষ্ঠা করেন। স্বাধীনতার ৫০ বছর অতিক্রম করলেও বাংলাদেশের হোমিওপ্যাথরা শোষিত ও বঞ্চিত।

 

 

বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইনে (প্রস্তাবিত) অবমূল্যায়ন করে হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ গুলোকে ইন্সটিটিউট নামকরণ (ডিপ্লোমা কলেজ) করেছে, ডিএইচএমএস কোর্সে পাসকৃতদের উচ্চশিক্ষার কোন সুযোগ রাখেনি, ডিএইচএমএস কোর্সের কোন সমমান রাখেনি, হোমিওপ্যাথিক কাউন্সিল প্রতিষ্ঠায় কলেজ অনুমোদন/স্বীকৃত ও শিক্ষার মান এবং শিক্ষকদের নিয়ন্ত্রণের সকল ক্ষমতা কাউন্সিলের পরিবর্তে বোর্ড নিজের নিকট রেখেছে।

 

 

এছাড়া সম্প্রতি হোমিওপ্যাথি বিরোধিরা গোপনে হোমিওপ্যাথিদের না জানিয়ে/বিবাদি না করে বিভ্রান্ত করে হাইকোর্টে রীটে আদালত পর্যবেক্ষণ রায়ে হোমিওপ্যাথদের ডা. পদবী বিষয়ে বিপক্ষে রায়ে দেশের হোমিওপ্যাথিদের সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্ন ও মাঠ পর্যায়ে হোমিওপ্যাথ ডাক্তারদেরকে প্রশাসন ঝামেলা এবং সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্নের প্রতিবাদ ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এর সরকারি হোমিওপ্যাথি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে অবস্থান কর্মসূচী।

 

 

সেই সঙ্গে যথাযথভাবে ডিএইচএমএস ও বিএইচএমএস কৃতদের অধিকার বজায় রেখে দ্রুত বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন (প্রস্তাবিত) জাতীয় সংসদে পাস করা, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে (হোমিওপ্যাথি, আয়ুর্বেদিক, ইউনানি) আলাদা পূর্ণাঙ্গ বিভাগ বা আলাদা মন্ত্রণালয় অনুমোদন করা, অবিলম্বে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কাউন্সিল (প্রস্তাবিত) প্রতিষ্ঠা করা, কেন্দ্রীয়ভাবে জাতীয় হোমিওপ্যাথি গবেষণা ইন্সটিটিউট স্থাপন করা, ডিএইচএমএস ও বিএইচএমএস কৃতদের উচ্চশিক্ষার জন্য সরকারি এবং বেসরকারিভাবে হোমিওপ্যাথি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে সরকারি হোমিওপ্যাথি কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা।
(দাবি সবার। সকল হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক ও হোমিওপ্যাথিক সংগঠনকে কর্মসূচী পালনে আহবান জানাচ্ছি)

 

 

স্থান : বাংলাদেশের সকল ডিএইচএমএস ও বিএইচএমএস হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক নিজ নিজ চেম্বার তালা বন্ধ করে চেম্বারে বাহিরে টেথিস্কোপসহ দাঁড়িয়ে/বসে অবস্থান।

সময় : সকাল ১০ টা হতে ১১ টা পর্যন্ত (১ ঘন্টা)।
তারিখ : ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ (মঙ্গল বার)।

আহবানে :
ডা. মো. আব্দুস সালাম (শিপলু)।
সভাপতি/প্রধান সমন্বয়ক, “বাংলাদেশ ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) চিকিৎসক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী অধিকার পরিষদ”, কেন্দ্রীয় কমিটি, বাংলাদেশ।

(চিকিৎসক, শিক্ষক, কেন্দ্রীয় হোমিওপ্যাথি নেতা, কেন্দ্রীয় শিক্ষক নেতা, কলামিস্ট ও প্রাক্তন সাংবাদিক)
বাংলাদেশ।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com