বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৪৮ পূর্বাহ্ন

পাণ্ডিত্য আর ছায়াময় অস্তিত্বে সর্বোচ্চ নেতার পদে হাইবাতুল্লাহ

পাণ্ডিত্য আর ছায়াময় অস্তিত্বে সর্বোচ্চ নেতার পদে হাইবাতুল্লাহ

অল নিউজ ডেস্ক :

তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদার একটি মাত্র ছবিই পাওয়া যায়, যে ছবিতে তিনি সরাসরি ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে আছেন। মাথায় সাদা পাগড়ি, ধূসর লম্বা দাড়ি। অভিব্যক্তিহীন বিবর্ণ এক মুখ।

 

গত মাসে মার্কিন-নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা সামরিক বাহিনী প্রত্যাহারের পর আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসা ইসলামি আন্দোলন তালেবান মঙ্গলবার তাদের নতুন সরকার ঘোষণা করেছে। এই গোষ্ঠীর সর্বোচ্চ নেতা রহস্যময় হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা; ২০১৬ সাল থেকে তালেবানের রাজনৈতিক, ধর্মীয় এবং সামরিক বিষয়ে চূড়ান্ত কর্তৃত্বের অধিকারী হিসেবে এই পদে আছেন তিনি।

 

আফগানিস্তানের দখল নেওয়ার পর মঙ্গলবার প্রথমবারের মতো এক লিখিত বিবৃতিতে তালেবানের সর্বোচ্চ এই নেতা বলেন, ‌‘আমাদের যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে আমরাই পুনর্গঠন করব।’ তিনি বলেন, ‘ইসলামি আইনের সাথে সাংঘর্ষিক নয়; এমন সমস্ত আন্তর্জাতিক আইন, চুক্তি এবং প্রতিশ্রুতির প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ তালেবান। যে ইসলামি আইনে এখন থেকে আফগানিস্তানের পুরো শাসন ব্যবস্থা পরিচালিত হবে।’

 

একজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীর বাবা কট্টরপন্থী ধর্মীয় পণ্ডিত হিসেবে তালেবানের ভেতরে পরিচিত আখুন্দজাদা তার নেতৃত্বের বেশিরভাগ সময় কাটিয়েছেন ছায়ায়, সংকট সমাধানের আলোচনায় সবসময়ই অন্যদের নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ দিয়েছেন; যা শেষ পর্যন্ত ২০ বছরের জঙ্গিবিরোধী যুদ্ধের পর যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের আফগানিস্তান ত্যাগে বাধ্য করেছে।

 

 

তার বয়সের মতো মৌলিক বিষয়টিও যাচাই করা কঠিন। তবে আখুন্দজাদার বয়স ৬০ এর কাছাকাছি হতে পারে বলে ধারণা করা হয়। তালেবান নিয়ে গবেষণা করেছেন এমন কয়েকজন বিশ্লেষক বলেছেন, ‘তিনি ছিলেন একজন পথপ্রদর্শক। দলের ভেতর বিভাজন নিষ্পত্তি এবং সামরিক বিজয়ের আগে পর্যন্ত আন্তর্জাতিক মিত্র ও শত্রুদের সামলাতেই বেশি ভূমিকা রেখেছেন তিনি।’

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com