বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন

শিবগঞ্জে ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে ককটেল বিষ্ফোরণে আহত-৮

শিবগঞ্জে ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে ককটেল বিষ্ফোরণে আহত-৮

মোহাঃ সফিকুল ইসলাম, (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি :

আসন্ন ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দের আগেই সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নে ক্ষমতাশীন দলের মনোনীতি প্রার্থী খাইরুল ইসলামের সমর্থকরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে শিবগঞ্জ থানায় অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রহুল আমিন। বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ১০টার দিকে উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের খাসেরহাট বাজারে স্বতন্ত্র প্রার্থী রুহুল আমিনের নির্বাচনী অফিসের সামনে এই ঘটনা ঘটে। এই ককটেল বিষ্ফোরনে আহত হয়েছে ৮জন। আহতরা হচ্ছে, কাইয়ুম রেজা, কাওসার, রয়েল, বদিউর, আলমলীগ, আপেল, কালু ও সানাউল্লাহ।

 

এই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রুহুল আমিনের সমর্থক আহত কাইয়ুম রেজা জানান, নৌকা প্রতীকের সমর্থক টমাস প্রথমে ৩টি ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটিয়ে আমাদের স্বতন্ত্র প্রার্থী রুহুল আমিনের সমর্থকদের উপরে চাপিয়ে চেষ্টা করে এবং জনসম্মূখে মিথ্যা অপপ্রচার করে। আমি এসময় তার মিথ্যা অপপ্রচারে বাধা দিলে টমাসের নেতৃত্বে ৩০/৩৫ আমাদের উপরে হামলা চালায় এবং আমাদের ৩টি মটরসাইকেল ভাঙচুর করে। বর্তমানে ২জন হাসপাতালে ও বাঁকিদের স্থানীয় চিকিৎসকের চিকিৎসা দিয়ে বাসায় রয়েছে।

 

এব্যাপারে স্বতন্ত্র প্রার্থী রুহুল আমিন জানান, আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী। নির্বাচনে আমার প্রতিদ জনগণের ব্যাপক সমর্থন থাকায় প্রতিপক্ষ ক্ষমতাশীন দলের মনোনীতি প্রার্থী খাইরুল ইসলামের সমর্থকরা আমার কর্মী ও সমর্থকদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়েছে। তারা ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটিয়েছে। তাদের হামলায় আমার ৮জন কর্মী-সমর্থক আহত হয়েছে। তার মধ্যে ৩জন গুরুত্বর আহত হয়েছে। হামলাকালে তারা আমাদের ৩টি মটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে। আমি এই ঘটনার প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং তাদের বিরুদ্ধে শিবগঞ্জ থানায় অভিযোগ দিয়েছি।

 

তিনি আরো জানান, প্রতীক বরাদ্দের আগেই যদি এমন সহিংসতা ঘটে, তাহলে ২৮ নভেম্বর সুষ্টু নির্বাচন হবে কি না আমার সন্দেহ আছে। আমি স্থানীয় প্রশাসনসহ জেলা-উপজেলা নির্বাচন রিটার্ণিং অফিসারের কাছে সুষ্ট ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আবেদন করেছি।

 

এদিকে, ক্ষমতাশীন দলের মনোনীতি প্রার্থী খাইরুল ইসলাম অস্বীকার করে জানান, প্রতিপক্ষরাই এই ঘটনাটি ঘটিয়ে আমাকে দোষারোপ করার চেষ্টা করছে। আমিও প্রশাসনের কাছে সুষ্ট নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছি।
মনাকষা ও বিনোদপুর ইউনিয়ন নির্বাচন রিটার্ণিং কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার দাস জানান, আমার কাছে কোন লিখিত অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

 

এব্যাপারে শিবগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মো. ফরিদ হোসেন জানান, রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ৩টি ভাঙচুর করা মটরসাইকেল উদ্ধার করে ইউনিয়ন পরিষদে জমা রাখা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

তিনি আরো জানান, শুধু বিনোদপুর ইউনিয়ন নয়, পুরো উপজেলায় সুষ্ট অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সব ধরণের সহিংসতা রোধে পুলিশের পক্ষ থেকে চেষ্টা অব্যহত থাকবে।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com