বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন

শিবগঞ্জে আকস্মিকভাবে বসে গেলে ১১টি বাড়ি, আরও ৩২টি বাড়ি ঝুঁকির মুখে

শিবগঞ্জে আকস্মিকভাবে বসে গেলে ১১টি বাড়ি, আরও ৩২টি বাড়ি ঝুঁকির মুখে

মোহা: সফিকুল ইসলাম, (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি :

শিবগঞ্জের মোবারকপুরে আকস্মিকভাবে মাটির নীচে বসে গেছে ১১টি বাড়ি। আরো ৩২টি বাড়ি ঝুঁকির মুখে।ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলোর কেউ কেউ অন্যের বাড়িতে আবার কেউ কেউ খোলা আকাশের নীচে বাস করছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেনর উপজেলা প্রশাসন ।

 

সোমবার বিকালে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের জোহরপুর গ্রামে ১১টি বাড়ি সরজমিনে মাটির নীচে বসে গেছে। কয়েকটি বাড়ির মেঝেতে ও দেয়ালে ফাটল ধরেছে। বাড়ির লোকজন জিনিস পত্র অন্যত্রে সারিয়ে নিয়েছে। নীচে বসে যাওয়া বাড়ি গুলো দেখতে এলাকার হাজার হাজার নারী পুরুষ ভীড় করছে। কেউ কেউ বাড়িওয়লাদের সাহায্যের জন্য সাধারণ মানুষের নিকট হতে টাকা উত্তোলন করছে।

 

শ্রী তপন হলদারের স্ত্রী শ্রী সুন্দরী রানী জানান, গতকাল রবিবার দুপুর একটার দিকে আমরা বাড়ির উঠানে বসে ছিলাম। হঠাৎ করে দেখি দক্ষিণ ভিটার তিনটি ছাদ দেয়া ঘর, একটি রান্না ঘর ও একটি পায়খানা সরজমিনে নীচের দিকে বসে যাচ্চে। কিছুক্ষনের মধ্যে সেগু্েরলা পুরোপুরি নীচে বসে গেলো। পাশের ঘরগুলোতে ফাটল ধরে গেলো। আমরা ভয়ে আতংকিত হয়ে দূরে সরে গেলাম। মৃত আহাদুল ইসলামের স্ত্রী জেলিসা বেগম গত সাতদিন আগে অমাদের শয়ন ঘরের মে্েরঝতে হঠাৎ করে ফাটল দেখতে পাই। তখনও কোন গুরুত্ব দেইনি। পরে দেখি ঘরগুলো আস্তে আস্তে নীচের দিকে বসে যাচ্ছে। এ পর্যন্ত আমাদের তিনটি ঘর নীচে বসে গেছে। দেয়ালগুলো প্রথমে ফাটল ধরছে এবং আস্তে আস্তে ধসে যাচ্ছে। নিচে বসে যাওয়া অন্যান্য বাড়ির মালিকারা হলো শ্রী অনিল হলদার,শ্রী রুপচান হলদার,শ্রী দয়াল হলদার,শ্রী অপুরাণ হলদার, নজরুল,ইসলাম,ডাবলু আলি,মোবারক আলি, শ্রী নিরঞ্জন হলদার। এ ঘটনায় পুরো এলাকায় আতংক বিরাজ করছে।

এলাকার সাইদুল ইসলাম, ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী মনিরুল ইসলাম, আগামী ইউপি নির্বাচনে কানসাট ইউপির চেয়ারম্যন প্রার্থী ও বাংলাদেশ ক্যারাটে এর জাতীয় ও আন্তজার্তিক সেরা রোকেয়া খাতুন সহ ২৫/৩০ জন জানান,পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেট অপারেটর তোহরুল ইসলাম কানসাট ডারা (খালের (খালের) সুইজগেটের গেটগুলো উম্মুক্ত করে দেয়ার ড্যারাটি দ্রুত পানি শুন্য হওয়ায় এ ঘটনা ঘটেছে। তবে গেট অপারেটর এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন আমি উর্দ্ধতন কর্তৃৃপক্ষের নির্দেশ ক্রমে বন্যার সময় থেকে গেট গুলো উম্মুক্ত করেছি। যা কৃষকদের স্বার্থে প্রতিবছর গেটগুলে উমুক্ত করা হয়।

 

রোকেয়া খাতুন আরো জানান, আমি মনিরুর ইসলাম ব্যক্তি গত উদ্যোগে আজ ৪৩টি পরিবারের মাঝে পাঁচ কেজি করে চাল ও আলু বিতরন করেছি এবং সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে জানিয়েছি। এদিকে শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ফরিদ উদ্দিন জানান ঘটনাস্থলে সাধারণ মানুষের অতিরিক্ত ভিড়ে যেন কোন বিশৃংখলা না ঘটে সে জন্য ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

 

শিবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম জানানা, আমি ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছি।ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের তালিকা তৈরী করে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে দেয়ার জন্য প্রস্তুতি চলছে।

তিনি আরো জানান, ওই গ্রামটির পাশে পাগলা নদী সংলগ্ন কানসাট ড্যারা(খাল) আছে। সে ড্যারার(খালের) হঠাৎ করে পানি শুন্য হয়ে যাওয়ায় এ ঘটনাটি ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাকিব আল রাব্বী জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরী করা হয়েছে। দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা ময়েজ উদ্দিন জানান, মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করবো । পরিদর্শন করে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা: সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল জানান, গত শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করেছি। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের জন্য সবধরনের প্রযোজনীয় ব্যবস্থা হবে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য  অধ্যাপক (ভূতত্ত্ব ও খনিজ বিদ্যা বিভাগ) গোলাম সাব্বির  সাত্তার জানান, গ্রাম ঘেষা  খালের পানি শুন্যতায় পানির স্তর নীচে নেমে গেছে এবং পাশের বিশ্বরোডে  ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে বাড়িগুলো সরাসরি  নীচে বসে গেছে।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com