মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
হরিমোহন স্কলে পদোন্নতিপ্রাপ্তদ শিক্ষকদের সংবর্ধনা ওমিক্রন ঠেকাতে শিবগঞ্জে মাস্ক বিতরণ শিবগঞ্জে বীরমুক্তিযোদ্ধা সনু লাঞ্ছিতের ঘটনায় তদন্ত শুরু শিবগঞ্জে বিভিন্ন ভাতা ভোগীদের আয় বৃদ্ধিমূলক ব্ল্যাকবেঙ্গল ছাগল ও দেশি মুরগি বিষয়ক প্রশিক্ষণ সিভিল সার্ভিসে ১০বছর পদার্পণ, শিবগঞ্জ অফিসার্স ক্লাবের শুভেচ্ছা একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন শেষ হচ্ছে আজ সিলেট সানরাইজার্সে খেলবেন সিমন্স নিউজিল্যান্ড মিশন শেষে দেশে ফিরলেন মুমিনুলরা শিবগঞ্জে সাদ্য যোগদানকৃত ডিসি’র গুচ্ছগ্রাম পরিদর্শন ও কম্বল বিতরণ নবীগঞ্জে প্রশাসনের উদ্যােগে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্পের জন্য সরকারি খাস জমি উদ্ধার
ড. কামাল সংবিধান রচয়িতা নন, দাবি বিচারপতি মানিকের

ড. কামাল সংবিধান রচয়িতা নন, দাবি বিচারপতি মানিকের

অল নিউজ ডেস্ক :
আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেছেন, অনেকেই বলে থাকেন ড. কামাল হোসেন সংবিধান রচয়িতা। এটা যে কত বড় একটা ভুল কথা, মিথ্যা কথা সেটা কিন্তু অনেকেই জানেন না। সংবিধান রচনা করেছেন ৩৪ জন ব্যক্তি, কামাল হোসেন সেই ৩৪ জন ব্যক্তির একজন মাত্র। যেহেতু তিনি আইন মন্ত্রী ছিলেন, সে জন্য তিনি ওই কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। চেয়ারম্যান কিন্তু সংবিধান রচনা করেন না।

 

শুক্রবার (১০ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে কম্বাইন্ড হিউম্যান রাইটস ওয়ার্ল্ড আয়োজিত বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

 

বিচারপতি মানিক বলেন, বঙ্গবন্ধু এটা পরিষ্কারভাবে বলেছিলেন ১৯৪৮ সালের আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সনদের যে কথাগুলো আছে তার সবগুলো আমাদের সংবিধানে স্থান পেতে হবে। আমাদের সংবিধানে ২৬ থেকে ৪৪ এই ১৮টি অনুচ্ছেদে মানবাধিকার সনদের সব কথাই নিশ্চিত করা আছে। মানবাধিকার লঙ্ঘিত হলে হাইকোর্টে যেন রিট করতে পারেন সে ব্যবস্থা করে গেছেন বঙ্গবন্ধু।

 

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলের উদ্দেশ্যে রাজাকারের ছেলে রাজাকার হয় এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, সাকার ছেলে সাকাই হয়েছে। ঠিক ওইভাবেই চখা মিয়ার ছেলে মির্জা ফখরুল হয়েছে। তার পুরো বংশ কিন্তু রাজাকারের বংশ। এই গোটা গোষ্ঠী রাজাকারের গোষ্ঠী। বিএনপি নেতাদের ডিএনএ নেন, দেখবেন তাদের মধ্যে রাজাকারের রক্ত রয়েছে।

 

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান মরে বেঁচে গেছেন এমন মন্তব্য করে সাবেক এই বিচারপতি বলেন, জিয়া শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেনি এই সংবিধানকেও হত্যা করেছিলেন। যার ফলে আমাদের সুপ্রিমকোর্টে জিয়াকে দেশদ্রোহী বলে উল্লেখ করেছেন। এবং অপর একটি মামলায় আমাদের সুপ্রিমকোর্ট জিয়াকে ঠান্ডা মাথার খুনি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন। যা আমাদের রেকর্ড আছে।

 

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও সাংসদ মোহাম্মদ শফিকুর রহমান, আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, সংরক্ষিত মহিলা সাংসদ তামান্না নুসরাত বুবলী, মানবাধিকারকর্মী মমতাজ লতিফ, বোয়াফ সভাপতি কবির চৌধুরী তন্ময় এবং কম্বাইন্ড হিউম্যান রাইটস ওয়ার্ল্ডের চেয়ারম্যান এম এস সোহেল আহমেদ মৃধা।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com