বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:১৮ অপরাহ্ন

বট-পাকুড়ের বিয়ে নিমন্ত্রণ খেলেন হাজার অতিথি

বট-পাকুড়ের বিয়ে নিমন্ত্রণ খেলেন হাজার অতিথি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

রাজশাহী নগরীর খড়খড়ির বাইপাসে শ্রী শ্রী গোপালদেব ঠাকুর মন্দিরে ধুমধাম করে বট গাছ ও পাকুড় গাছের বিয়ে দেওয়া হয়েছে। এতে বিয়েতে প্রায় হাজার খানেক মানুষ বিয়ের দাওয়াত খেয়েছেন বলেও জানা গেছে।

 

শনিবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টায় সেখানে নারায়ণ পূজার মধ্য দিয়ে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। বট গাছকে ‘বর’ ও পাকুড় গাছকে ‘কনে’ ধরে বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের আগে বটের নাম রাখা হয় ‘বিজয়’। আর পাকুড়ের নাম হয় ‘বনলতা’।

এই বিয়েতে বটের বাবা-মা হয়েছিলেন বিধান চন্দ্র সরকার ও আরতি রানী সরকার দম্পতি। পাকুড়ের বাবা হয়েছিলেন বিশ্বজিৎ সরকার ও মা হয়েছিলেন কনিকা রানী সরকার।

 

স্থানীয় এলাকবাসী জানান, একশ বছরেরও বেশি পুরনো এ মন্দির প্রাঙ্গণে ১৭ বছর আগে পাশাপাশি গাছ দুটি লাগানো হয়েছিল। হিন্দু শাস্ত্রমতে পাশাপাশি বট-পাকুড় গাছ থাকলে তাদের বিয়ে দিতে হয়। এই রীতি মেনেই শনিবার ধুমধাম করে তাদের বিয়ে দেয়া হয়েছে। আর তাই মানুষের মতোই ঘটা করে ধামুধামে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়েছে।

বিয়ে ঘিরে বর-কনের পাশে ছাদনাতলা সাজানো হয়। টাঙানো হয়েছিল সামিয়ানা। লাগনো হয় দৃষ্টিনন্দন লাইট। বিয়ের জন্য প্রস্তুত করা হয় চারপাশ। হিন্দু রীতি অনুসারে কলাগাছ দিয়ে সাজানো ছিল বিয়ের আসর। দিনভর গান চলে বাজনা। গানের তালে তালে চলে বর ও কনে পক্ষের নাচানাচি। পাশেই ব্যস্ত রাঁধুনিরা। মোটকথা সত্যিকারের বিয়ের উৎসবে যা যা হয়ে থাকে তাই হয়েছে। শুধু বর-কনে দাঁড়িয়ে আছে একই জায়গাতে।

 

বট-পাকুড়ের বিয়ে দওয়াত খেলেন হাজার অতিথি। বিকেল ৪টা থেকে ছাদনাতলায় মঙ্গলঘট বসিয়ে শুরু হয় বিয়ের আয়োজন। বিকেলের দিকে দলে দলে লোক আসে বরযাত্রী হয়ে। গেটে তাদের অভ্যর্থনা জানানো হয় বাতাসা খাইয়ে। সন্ধ্যা থেকে জমে ওঠে বিয়ের অনুষ্ঠান। বর-কনের চারপাশ ঘিরে গল্পে মেতে ওঠেন অতিথিরা।

 

পাকুড় গাছের মা কনিকা রানী বলেন, ১০ দিন আগে তিনি পাকুড়ের মা হওয়ার সিদ্ধান্ত পান মন্দির কমিটির মাধ্যমে। মূলত মেয়ের বিয়ে দেওয়া উপলক্ষেই তিনি মা হয়েছেন। গাছের মা হওয়া এবং ধুমধাম আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে বিয়ে দেওয়ায় তিনি বেশ আনন্দিত।

 

পুরোহিত পুলক আচার্য বিয়ের মূল আনুষ্ঠানিকতার দায়িত্বে ছিলেন। গোধূলি লগ্নে মন্ত্র পড়ে বিয়ের কাজটি সম্পন্ন করেছেন তিনি। বিয়ের এই অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রণ খেতে এসেছিলেন প্রায় হাজারখানেক অতিথি। আমন্ত্রিতদের খাওয়ানো হয় পোলাও, সবজি ঘণ্ট আর পায়েস। সঙ্গে ছিল জলপাইয়ের আচার।

 

বিয়ের এই আড়ম্বরপূর্ণ আয়োজনের বিষয়ে মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব সরকার বলেন, হিন্দু শাস্ত্রে আছে বট-পাকুড় পাশাপাশি থাকলে তাদের বিয়ে দিতে হয়। রীতি চরিতার্থ করার স্বার্থেই এ আয়োজন। বট-পাকুড় এখন আজীবন এভাবে পাশাপাশি থাকবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

বিয়ের অনুষ্ঠানটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সহায়তা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিল পুলিশ।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com