মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:২৬ অপরাহ্ন

মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়া শুরু হলে লেনদেন ব্যাংক বা অনলাইনে

মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়া শুরু হলে লেনদেন ব্যাংক বা অনলাইনে

অল নিউজ ডেস্ক :
বাংলাদেশ সরকারের ঘোষণা দেওয়ার পর মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়া শুরু হলে আর্থিক লেনদেন ব্যাংক বা অনলাইনের মাধ্যমে হবে বলে জানিয়েছেন জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) মহাপরিচালক মো. শহীদুল আলম।

 

সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) রাজধানীর কাকরাইলে বিএমইটি সম্মেলন কক্ষে ‘বৈদেশিক কর্মসংস্থানে কোভিড-১৯ এর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা ও জনসচেতনতা সৃষ্টিতে মিডিয়ার দায়িত্বশীল অবদান’ এ কথা বলেন বিএমইটির মহাপরিচালক।

 

বিএমইটির মহাপরিচালক বলেন, ‘মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ ছিল। সেটা খুলে দেওয়া হয়েছে। আশা করছি, খুব দ্রুত কর্মী যাওয়া শুরু হবে। যারা মালয়েশিয়ায় যেতে চান তাদের বিএমইটির মাধ্যমে যেতে হবে। আমরা চাই কর্মীদের যাওয়ার জন্য যে আর্থিক লেনদেন হবে, সেটা ব্যাংক বা অনলাইনের মাধ্যমে হবে।’

 

শহীদুল আলম বলেন, ‘মালয়েশিয়ার সঙ্গে ইউনিক এমওইউ করা হয়েছে। এই সমঝোতা স্মারকের আওতায় বাংলাদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়া প্রান্তের সব খরচ নিয়োগকর্তা বহন করবেন। যেমন রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি নিয়োগ, মালয়েশিয়ায় নিয়ে যাওয়া, তাদের আবাসন, কর্মে নিয়োজিত করা এবং কর্মীর নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর খরচ বহন করবেন।’

নিয়োগকর্তা নিজ খরচে মালয়েশিয়ান রিক্রুটিং এজেন্ট নিযুক্ত করতে পারবেন। মালয়েশিয়ায় আসার পর বাংলাদেশি কর্মীর ইমিগ্রেশন ফি, ভিসা ফি, স্বাস্থ্য পরীক্ষার খরচ, ইনস্যুরেন্স-সংক্রান্ত খরচ, করোনা পরীক্ষার খরচ, কোয়ারেন্টাইন-সংক্রান্ত খরচসহ সব ব্যয় মালয়েশিয়ার নিয়োগকর্তা বা কোম্পানি বহন করবে। নিয়োগকর্তা কর্মীর মানসম্মত আবাসন, বিমা, চিকিৎসা ও কল্যাণ নিশ্চিত করবেন, যোগ করেন বিএমইটির মহাপরিচালক।

 

মালয়েশিয়ায় কর্মী যেতে কত খরচ হতে পারে-এমন প্রশ্নের জবাবে শহীদুল আলম বলেন, ‘এত সব সুবিধার পর অবশ্যই কর্মীদের খরচ খুব কম হওয়া উচিত। খুব বেশি খরচ হবে না বলে আমি মনে করি। রিজনেবল প্রাইসে কর্মীরা সেখানে যেতে পারবে।’

 

গত ১৯ ডিসেম্বর শ্রমবাজার নিয়ে কুয়ালালামপুরে মালয়েশিয়ার সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে বাংলাদেশ। এমওইউ সই হলেও কর্মী প্রেরণ শুরুতে এখনও অনেক আনুষ্ঠানিকতা বাকি রয়েছে।

 

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ ও মালয়েশিয়া সরকারের মানবসম্পদমন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারাভানান নিজ নিজ দেশের পক্ষে এমওইউ সই করেন।

 

দীর্ঘ তিন বছর বন্ধ থাকার পর গত ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে অনুমোদন দেয় মালয়েশিয়া। বাংলাদেশ থেকে সব পেশার শ্রমিক নেওয়ার অনুমোদন দিয়েছে দেশটি। বিশেষ করে গৃহকর্মী, বাগান, কৃষি, উৎপাদন, পরিষেবা, খনি ও খনন এবং নির্মাণ খাতে বাংলাদেশি কর্মী নেবে দেশটি।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com