সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৪৯ অপরাহ্ন

ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে বড়দিনের উৎসবে বাধা, যিশুর মূর্তি ভাঙচুর

ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে বড়দিনের উৎসবে বাধা, যিশুর মূর্তি ভাঙচুর

অল নিউজ ডেস্ক :
স্থানীয় নির্বাচনের কয়েক মাস আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির রাজনৈতিক মূল এলাকাসহ দেশটির বিভিন্ন এলাকায় খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের বড়দিনের উৎসবে বাধা দিয়েছে কট্টর হিন্দুত্ববাদী কয়েকটি সংগঠন। সোমবার ভারতের ইংরেজি দৈনিক দ্য হিন্দুর এক প্রতিবেদনে ভারতজুড়ে বড়দিনের উৎসবে কট্টর হিন্দুত্ববাদীদের বাধা দেওয়ার খবর জানানো হয়েছে।

 

দ্য হিন্দু বলেছে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হিন্দুত্ববাদী রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) শাসিত উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য হরিয়ানার আমবালায় জিসু খ্রিস্টের মূর্তি ভাঙচুর এবং বড়দিনের উদযাপনে ব্যাঘাত সৃষ্টি করা হয়েছে।

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিজেপির কর্মীরা সান্তা ক্লজের একটি মডেলে অগ্নিসংযোগ এবং শনিবার মোদির সংসদীয় এলাকা ও হিন্দু ধর্মের পবিত্রতম শহর বারাণসীতে একটি গির্জার বাইরে ক্রিসমাস উদযাপন ও ধর্মান্তরের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়েছে।

 

বারাণসীর সমাজকর্মী অনুপ শ্রমিক রয়টার্সকে বলেছেন, তিনি প্রায় দুই ডজন মানুষকে সান্তা ক্লজের মডেল পুড়িয়ে দিতে দেখেছেন। তবে এ ব্যাপারে ভারতের কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকারকে টেলিফোন করা হলেও মন্তব্য করতে রাজি হয়নি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

 

বারাণসী ছাড়াও শনিবার পূর্বাঞ্চলীয় আসামের শিলচরেও বড়দিনের উৎসবে বাধা দেওয়া হয়েছে। বিজেপি-সমর্থিত দেশটির কট্টর হিন্দুত্ববাদী বজরং দলের কিছু সদস্য সেখানকার একটি গির্জায় বড়দিনের উৎসবে ব্যাঘাত ঘটিয়েছে বলে এনডিটিভির খবরে জানানো হয়েছে।

 

দেশটির প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেস এবং সংখ্যালঘু খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের নেতারা এসব ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী এবং কংগ্রেসের জ্যেষ্ঠ নেতা পি চিদাম্বরম এক টুইটে বলেছেন, হরিয়ানা ও আসামের বিজেপি সরকারের দুষ্কৃতীদের শনাক্ত করে আইনের আদালতে হাজির করার নির্দেশ দেওয়া উচিত প্রধানমন্ত্রীর।

 

২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন বিজেপি ভারতের ক্ষমতায় আসার পর দেশটির রাজ্যগুলোতে কট্টর হিন্দুত্ববাদী বিভিন্ন সংগঠন তাদের অবস্থান সুসংহত করেছে। এমনকি বিভিন্ন রাজ্যে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সদস্যদের ওপর হামলাও চালিয়েছে এই হিন্দুত্ববাদীরা। দেশটির হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলো বলছে, দেশে ধর্মান্তর প্রতিরোধ করাই তাদের কাজ।

 

ভারতের সংবিধানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিশ্বাস এবং মানবাধিকার রক্ষার নিশ্চয়তা দেওয়া হলেও কয়েকটি রাজ্যে ধর্মান্তরবিরোধী আইন পাস হয়েছে অথবা পাস করার প্রক্রিয়ায় আছে।

 

দেশটির বিভিন্ন প্রান্তে বড়দিনের উৎসবে বাধা, সান্তা ক্লজ ও যিশু খ্রিস্টের মূর্তি ভাঙচুর এবং অগ্নিসংযোগের নিন্দা জানিয়েছেন অল ইন্ডিয়া ক্যাথলিক ইউনিয়নের ভাইস-প্রেসিডেন্ট ইলিয়াস ভাজ। তিনি বলেছেন, ভারতের শক্তি তার বৈচিত্র্যে এবং যারা বড়দিনে ব্যাঘাত ঘটিয়েছে, তারাই প্রকৃত দেশবিরোধী।

১৩০ কোটি ৭০ লাখ মানুষের দেশ ভারতে সংখ্যালঘু খ্রিস্টান এবং মুসলিম জনগোষ্ঠীর পরিমাণ প্রায় ১৬ শতাংশ।

সূত্র: রয়টার্স, এনডিটিভি, দ্য হিন্দু।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com