বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২২ অপরাহ্ন

বাগমারা যুবলীগ সভাপতির সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিচারের দাবিতে রাজশাহীতে সংবাদ সম্মেলন

বাগমারা যুবলীগ সভাপতির সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিচারের দাবিতে রাজশাহীতে সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

রাজশাহীর বাগমারার হামিরকুৎসা ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি শাহরেজা আলিম (ইমন) ও তার বাহিনীর সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও হত্যার উদ্দেশ্যে হামলার বিচারের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগীরা।

মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) দুপুর আড়াইটায় রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী বলেন, আমি বিগত ২৫/২৬ বছর ধরে রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার কাঠ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত এবং গত ১২ বছর যাবত এম, আর, ই, ক্যাবল নেটয়াকর্ (ডিস ব্যাবসা) তাহেরপুর হেডেন হয়েত আমি বিটিভি ফিড লাইসেন্স (এফ ও ৪০০) সহ সরকারি সমস্ত কাগজ পত্র নিয়ে ব্যাবসা করছি। হামিরকুৎসা (আলোকনগর) বাজারে আমার কেবলনেটওয়ার্ক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কার্যালয় আছে। গত ৬ অক্টোবর আমার অসুস্থতার কারণে আমার স্ত্রী ও ২ সন্তানসহ
ব্যাবসাকার্য পরিচালনার জন্য অত্র এলাকায় যায়। হঠাৎ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় আমাদের ব্যাবসা দখলের উদ্দেশ্যে

হামিরকুৎসা ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি শাহরেজা আলম (ইমন) এর নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী চাইনিজ কুড়াল
হাসুয়া , লোহার রড সহ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুর চালায়।

 

এ সময় আমার দুই ছেলেকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালিয়ে তাদের মাথা ফাটিয়ে দেয়। তাদেরকে উদ্ধার করে আমার স্ত্রী চিকিৎসার জন্য মেডিকেলে যাওয়ার পথে পলাশী নামক গ্রামের বৃস্তিায় আবারো পতিরোধ করে উপর্যুপরি হামলা চালায়। এসময় আমার স্ত্রীর শ্রীল্লতাহানির চেষ্টা করে এবং তাকে মারপিট করে। তার পোশাক টেনে ছিড়ে ফেলে ও স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। গ্রামবাসী তাদের উদ্ধারে এগিয়ে এলে সন্ত্রাসী বাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয়। এবং যুবলীগ সভাপতি একটি হত্যা মামলার আসামী (জামিনে রয়েছে ) শাহরেজা আলম (ইমন ) তার সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্য ভবানীপঞ্জ ক্লিনিকের মানেল্লার মাহফুজুর রহমান (রনি),তার ভাই রাফি , দিলার , বাধন , আরিফ সহ ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

 

 

তিনি জানান, ইমনের হামিরকুৎসা বাজারে একটি টর্চার সেল রয়েছে সেখানে তারা প্রতিদিন মাদকের আসর বসায়। এলাকায় মাদক ব্যবসা ও মাদকসেবী হিসেবে ইমন , রনি , দিনার, বাধন চিহ্নিত। তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে সকল এলাকাবাসী অতিষ্ঠ ।আমরা রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের বাসিন্দা হওয়ায় প্রতিনিয়ত এই এলাকা ছাড়তে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছে। আমার স্ত্রীসহ সন্তানদের উপর হামলা , ছিনতাই, শীল্লতাহানীর অভিযোগ করে বাগমারা থানায় সাধারণ ডাইরী করতে গেলে তারা সাধারন ডাইরী নিতে অস্বীকার করে। তবে বিষয়টি বাগমারা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি), ইন্সপেক্টরসহ থানার উপস্থিত অন্য সদস্যরা অবগত রয়েছে।

 

 

তিনি আরও জানান, তারা আমাকে উল্টো তাদের সঙ্গে আপোষের কথা বলে। আমরা বর্তমানে জীবনের চরম নীরাপওাহীনতায় ভুগছি। আমরা আপনাদের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করছি । শহরেজা আলম (ইমন) গ্রেফতার হয়ে জামিনে এসে এলাকায় তার বাহিনী নিয়ে ছিনতাই, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা , চাকরি দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎ , নারী নির্যাতনসহ নানা রকম সন্ত্রাসীকর্মকান্ডের সাথে জড়িত। আমরা যেন পরিবারপরিজন নিয়ে নিরাপদে জীবনযাপন করতে পারি এবং ব্যবসা পরিচালনা করতে পারি সেজন্য আপনাদের মাধ্যমে প্রশাসনেরসহযোগীতা কামনা করছি । সেই সঙ্গে যুবলীগ এর নাম ভাঙ্গিয়ে সন্ত্রাসী ইমন ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com