মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৯:২৮ অপরাহ্ন

আগামী প্রজন্মের জন্য এক নতুন ইতিহাস লিখতে যাচ্ছে পদ্মা সেতু

আগামী প্রজন্মের জন্য এক নতুন ইতিহাস লিখতে যাচ্ছে পদ্মা সেতু

নিউজ ডেস্ক :
সর্বনাশা পদ্মা নদী তোর কাছে শুধাই/ বল আমারে তোর কি রে আর/ কুল কিনারা নাই, কুল কিনারা নাই/ ও নদীর কুল কিনারা নাই। পাড়ির আশায় তাড়াতাড়ি/ সকাল বেলা ধরলাম পাড়ি আমার দিন যে গেল সন্ধ্যা হলো/ তবু না কুল পাই।’

আব্দুল লতিফের কালজয়ী এই গানে রয়েছে পদ্মা পাড়ের মানুষদের চিরকালীন চাপা এক বেদনার গল্প। যেই গল্প ছিল শুধু ভয় এবং অনিশ্চিতয়তার। সেই অনিশ্চয়তা এবং সকল ভয়কে ঠেলে নিয়ে নতুন গল্প রচনা করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। যে-গল্প ভয়কে জয় করার গল্প, যে গল্প সকল ষড়যন্ত্রকে রুখে দেওয়ার গল্প। ঘণ্টাখানেক পরই উদ্বোধন হতে যাচ্ছে প্রমত্তা পদ্মার বুকে নির্মিত পদ্মা বহুমুখী সেতু। যার মাধ্যমে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের পুরোনো কষ্ট, দুর্দশা ও দুশ্চিন্তার অধ‌্যায়ের সমাপ্তি ঘটবে। সেই সঙ্গে এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে ফিরে পাবে এক প্রাণ।

শনিবার (২৫ জুন) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এই স্বপ্নের সেতুর উদ্বোধন করবেন। এরই মধ্যে এ নিয়ে নানা আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। এর পরের দিন রোববার (২৬ জুন) সকাল ৬টা থেকে থেকে জনসাধারণের জন‌্য উন্মুক্ত হবে। যার মাধ্যমে ফেরি, লঞ্চ বা স্পিডবোটে বিপদসংকুল পদ্মা পাড়িতে অগণিত প্রাণও আর ঝরে পড়বে না।

সরকারের প্রত্যাশা, এ সেতু দেশের যোগাযোগে যেমন প্রভাব ফেলবে তেমনি অর্থনীতিতেও একটি বড় প্রভাব রাখবে। ধারণা করা হচ্ছে এর ফলে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার ১ দশমিক ২৩ শতাংশ বাড়বে।

প্রসঙ্গত, নানা অভিযোগ ও ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে ২০১৪ সালে নিজস্ব অর্থায়নে এই সেতুর কাজ শুরু হয়। দীর্ঘ সাত বছর বুধবার (২২ জুন) সেতুর নির্মাণকাজ শতভাগ শেষ করে তা সেতু বিভাগকে বুঝিয়ে দিয়েছে চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। যার মাধ্যমে দেশের মানুষের স্বপ্ন বাস্তবে দৃশ্যমান হয়।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com