শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হলেন একনাথ শিন্ডে

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হলেন একনাথ শিন্ডে

নিউজ ডেস্ক :
ভারতের মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন শিবসেনার নেতা একনাথ শিন্ডে। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর রাজভবনে শপথবাক্য পাঠ করেন তিনি। একই সঙ্গে উপমুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন বিজেপির দেবেন্দ্র ফডনবিশ। খবর এনডিটিভির।

একনাথ শিন্ডে ও দেবেন্দ্র ফডনবিশকে অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এর আগে, শিন্ডে ও দেবেন্দ্র মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল ভগত সিং কোশিয়ারির সঙ্গে দেখা করেন। ওই সাক্ষাতের পর দেবেন্দ্র ফডনবিশ প্রথম একনাথ শিন্ডের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার কথা জানান। ভারতের সুপ্রিম কোর্ট সংখ্যাগরিষ্ঠতা যাচাইয়ের প্রমাণ দিতে বিধানসভায় ভোটাভুটি আয়োজনের নির্দেশ দেওয়ার কয়েক মিনিট পরই গতকাল বুধবার উদ্ধব ঠাকরে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। ঠাকরের পদত্যাগের ঘোষণার পর বিজেপি মিষ্টি বিতরণ করে।

অটোরিকশা চালক থেকে মুখ্যমন্ত্রীর সফর :
১৯৬৪ সালে মহারাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করেন শিন্ডে। তিনি সাতারা জেলার পাহাড়ি জাওয়ালি তালুকার বাসিন্দা এবং মারাঠি সম্প্রদায়ের অন্তর্গত। একনাথ শিন্ডে থানেকে একাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন এবং তার পরে ওয়াগলে এস্টেট এলাকায় থেকে অটোরিকশা চালাতে শুরু করেন। একনাথ শিন্ডে আশির দশকে অটোরিকশা চালাতে গিয়ে শিবসেনায় যোগ দেন এবং দলের একজন সাধারণ কর্মী হিসেবে রাজনৈতিক যাত্রা শুরু করেন।
একনাথ শিন্ডে ১৯৯৭ সালে থানে মিউনিসিপ্যাল ​​কর্পোরেশন থেকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন এবং ২০০১ সালে মিউনিসিপ্যাল ​​কর্পোরেশন হাউসে বিরোধী দলের নেতা হন। এরপর ২০০২ সালে আবারও দ্বিতীয়বারের মতো কর্পোরেশনের কাউন্সিলর হন। এছাড়া তিন বছর ক্ষমতাসীন স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। যাইহোক, তিনি দ্বিতীয়বার কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার দুই বছর পরেই বিধায়ক হয়েছিলেন, তবে শিবসেনার তার রাজনৈতিক উত্থান ২০০০ সালের পরে শুরু হয়।

থানের এলাকার শিবসেনার প্রবীণ নেতা আনন্দ দিঘে ২০০০ সালে মারা যান। এরপর একনাথ শিন্ডে উত্থান শুরু হয়। এদিকে, ২০০৫ সালে নারায়ণ রানে শিবসেনা ত্যাগ করেন, তারপরে দলে একনাথ শিন্ডের মর্যাদা বাড়তে থাকে। রাজ ঠাকরে শিবসেনা ছাড়ার পর শিবসেনায় একনাথ শিন্ডের গ্রাফ বেড়ে যায় এবং ঠাকরে পরিবারের ঘনিষ্ঠও হয়ে ওঠেন। একনাথ দৃঢ়ভাবে উদ্ধব ঠাকরের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।

চতুর্থবারের মতো বিধায়ক
একনাথ শিন্ডের নাম মাতোশ্রীর কাছের নেতাদের তালিকায় প্রথমেই নেওয়া হয়। একনাথ শিন্ডে ২০০৪ সালে থানের কোপরি-পাঁচপাখাদি আসন থেকে প্রথমবারের মতো বিধায়ক নির্বাচিত হন। শিন্ডে, যিনি শিবসেনার টিকিটে ২০০৪ সালে প্রথমবার বিধানসভায় পৌঁছেছিলেন, পরে ২০০৯, ২০১৪ এবং ২০১৯ সালেও বিধানসভার সদস্য নির্বাচিত হন। শুধু তাই নয়, একনাথ শিন্ডের ছেলে শ্রীকান্ত শিন্ডেও শিবসেনার টিকিটে কল্যাণ লোকসভা আসন থেকে সাংসদ। এভাবেই পুরসভার কাউন্সিলর থেকে বিধায়ক ও মন্ত্রী হয়ে যান একনাথ শিন্ডে।

২০১৯ সালে বিধয়াক দলের নেতা নির্বাচিত হন
দেবেন্দ্র ফড়নবিস মন্ত্রিসভার শক্তিশালী মন্ত্রীদের মধ্যে একনাথ শিন্ডে ছিলেন। ২০১৯ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে যখন তিনি চতুর্থবারের মতো বিধানসভায় পৌঁছেছিলেন, তখন শিবসেনা এবং তার জোটের শরিক বিজেপির মধ্যে আলোচনার অবনতি ঘটে। শিবসেনা বিধায়ক দলের বৈঠকে একনাথ শিন্ডেকে বিধানসভা দলের নেতা নির্বাচিত করা হয়। এরপর আদিত্য ঠাকরেকে নেতা নির্বাচিত করা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়। শিবসেনা আইনসভা দলের বৈঠকে, আদিত্য ঠাকরেই একনাথ শিন্ডের নাম প্রস্তাব করেছিলেন এবং তিনি বিধায়ক দলের নেতা নির্বাচিত হন।

এর আগেও মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে শিন্ডের নাম ছিল
২০১৯ সালে বিধানসভা নির্বাচনের সময়, উদ্ধব ঠাকরে একটি সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন যে মহারাষ্ট্রে কেবল একজন শিব সৈনিক মুখ্যমন্ত্রী হবেন। উদ্ধব বলেছিলেন যে আমি বালাসাহেব ঠাকরেকে এই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। এমতাবস্থায়, যখন মহা বিকাশ আঘাড়ির সরকার গঠিত হচ্ছিল, তখন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে একনাথ শিন্ডের নাম দ্রুত উঠে আসে। সেই সময় শিবসেনার বিধায়ক ও নেতারাও তার নামে প্রস্তুত ছিলেন, কিন্তু এনসিপি এবং কংগ্রেস এতে একমত হয়নি। মহা বিকাশ আঘাড়ির থেকে উদ্ধব ঠাকরের নাম সামনে আসার পর একনাথ শিন্ডের আকাঙ্খা ভেস্তে যায়। তবে, তার আগেই একনাথ শিন্ডের সমর্থকরা তাকে ভবিষ্যৎ মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বর্ণনা করে জায়গায় জায়গায় পোস্টার লাগাতে শুরু করেন।

দুর্ঘটনায় সন্তানের মৃত্যু
দুর্ঘটনায় শিন্ডে তার দুই সন্তানকে হারিয়েছিলেন। চোখের সামনে সাতারায় ডুবে যায় তার ছেলে ও মেয়ে। এই ঘটনার পর শিন্ডে চুপ হয়ে গিয়েছিলেন। রাজনীতি ছেড়ে দিয়েছিলেন। তখন তিনি শিবসেনার কাউন্সিলর ছিলেন। কিন্তু আনন্দ দিঘে তাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনেন এবং থানে মিউনিসিপ্যাল ​​কর্পোরেশনে সদনের নেতা বানিয়েছিলেন। সূত্র : আজতাক।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com