রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা ঠাকুরগাঁও জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভা আধুনিক বাংলাদেশের  রুপকার জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার কৃষি বান্ধব সরকার-এমপি গালিব ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শন অনুষ্ঠিত হয়েছে শিবগঞ্জে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ১৫ শিবগঞ্জে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনীর উদ্বোধন-সমাপনী অনুষ্ঠিত রানীশংকৈল ডিগ্রি কলেজ মাঠে মুক্ত মঞ্চের শুভ উদ্বোধন জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে জাতীয় দলের পাঁচ নারী ক্রীড়াবিদদের সংবর্ধনা গোপালগঞ্জে নানান আয়োজনের মধ্য পালিত হলো পহেলা বৈশাখ আমতলীতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড নিহত-১, আহত-২
শিবগঞ্জে অবশেষে অসহায় দম্পতির আশ্রয়ের ব্যবস্থা দিলেন ইউএনও

শিবগঞ্জে অবশেষে অসহায় দম্পতির আশ্রয়ের ব্যবস্থা দিলেন ইউএনও

 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:দৈনিক ইত্তেপফাক ও দৈনিক সোনার দেশ পত্রিকার অনলাইন
সহ বিভিন্ন মিডিয়ায
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে সম্পত্তি ও অর্থ হাতিয়ে নিয়ে মা-বাবাকে বাড়ি থেকে বের করে
দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সন্তানদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের পর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা
প্রশাসকের নির্দেশনায় বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার কানসাট-পুখুরিয়া এলাকায়
আমিনুল ইসলামের বাড়িতে গিয়ে অসহায় দম্পতির খোঁজ খবর নিয়ে দায়িত্ব নেন উপজেলা
নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবুল হায়াত। এ সময় উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কাঞ্চন
কুমার দাস ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ফলমুল,চাল ডাল,তেল সহ শুকনা খাবার ও নগদ অর্থ প্রদান
করেন এবং দেখাশুনার দায়িত্ব নেন। তবে এসময তিনি বলেন যদি তার সন্তানদেও ভুল ভাঙ্গে এবং
তাদেরকে নিয়ে গিয়ে সেবা দেন। এব্যাপারে দাহারুল ইসলামের বড় ছেলে রায়নুর ইসলাম বলেন
এটি আমাদে ছোট ভাই সাইদুর রহমানে দুর্ব্যবহারে অতিষ্ঠ হয়ে আমার পিতামাতা আবেগ
তাড়িত হয়ে এটি করেছেন। অন্যদিকে সেজো ছেলে সহকারী অধ্যাপক এমরান আলি বলেন
যেহেতু উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল হায়াত ছাড়া আমার পিতামাতা সেখান থেকে
আসবেন না বলে জানিয়েছে। সেহেতু আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল হায়াতের
সাথে সরাসরি যোগাযোগ করে নিজ দায়িত্বে আমি আমার পিতামাতাকে নিয়ে আসবো
এবং যতদিন উনারা বাঁচবে ততদিন আমার সেবাযতেœর মাধ্যমে থাকবে। তিনি আরো বলেন
আমার পিতামাতা তাদের সমস্ত সম্পত্তি ও টাকা ছোট ছেলে সাইদুর রহমানকে দেয়ার পরও তার ও
তার স্ত্রীর দুব্যবহারের কারণে আবেগের বশবর্তী হয়ে এটি করেছেন। যা আমাদেরকে সুনাম
ক্ষুন্ন হয়েছে। বুধবার উপজেলার শ্যামপুর ইউনিয়নের কামাটোলা বাবুপুর গ্রামে নিজ বাড়ি
থেকে তাদের বের করে দেন সন্তানরা। নিরুপায় হয়ে কানসাট-পুখুরিয়া এলাকায় বাল্যকালের বন্ধু
আমিনুল ইসলামের বাড়িতে আশ্রয় নেন দাহারুল ইসলাম (৯০) ও শেরিনা বেগম (৮৫)।
মিডিয়ার সাথে সাক্ষাতকালে বৃদ্ধ দাহারুল ইসলাম বলেন, ছেলে-মেয়েরা আমাদের ভরণপোষণ ও
দেখাশুনা না করে বসতবাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে। এখন অসহায় জীবন-যাপন করছি। কোন
আয় করতে পারিনা। বর্তমানে বন্ধুর বাড়িতে বসবাস করছি। কান্নাজড়িত কণ্ঠে অসহায় বৃদ্ধ ও
বৃদ্ধা বলেন, সাত ছেলে-মেয়ে সবাই প্রতিষ্ঠিত। বড় ছেলে রায়নুল হক ব্রাকে চাকরি করে।
মেজো ছেলে বাগির আলম ভারতের বাসিন্দা। সেজো ছেলে এমরান আলী শাহাবাজপুর
সোনামসজিদ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক। ছোট ছেলে সাইদুর রহমান ব্যবসায়ী। মেয়েদের মধ্যে
মেজো মেয়ে স্কুল শিক্ষক। তারপরও আমাদের দুজনের ১৩ বিঘা জমি ও ৪০ লাখ টাকা হাতিয়ে
নিয়েছে সন্তানরা। জমি ও টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পর কেউ আশ্রয় না দিয়ে বাড়ি থেকে বের
করে দিয়েছে। তবুও আমাদের জন্য জুটেনি ভাত। এমনকি জাতীয় পরিচয়পত্র দুটিও তাদের কাছে
আছে। তবে বড় ছেলে রায়নুল হক বলেন, তারাই আমার বাবা-মা। কিন্তু আপনার যা জানার আছে
আমার অন্য ভাইয়ের কাছে জেনে নেন। সেজো ছেলে শাহাবাজপুর সোনামসজিদ ডিগ্রি
কলেজের শিক্ষক এমরান আলীর মোবাইল ফোনে কল দেওয়া হলে তার স্ত্রী জানান, এ বিষয়ে মোবাইলে
কথা বলা সম্ভব নয়।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com