বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
নয়ন খানকে ভাইস চেয়ারম্যান হিসাবে দেখতে চায় শিবগঞ্জ উপজেলাবাসী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা ঠাকুরগাঁও জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভা আধুনিক বাংলাদেশের  রুপকার জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার কৃষি বান্ধব সরকার-এমপি গালিব ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শন অনুষ্ঠিত হয়েছে শিবগঞ্জে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ১৫ শিবগঞ্জে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনীর উদ্বোধন-সমাপনী অনুষ্ঠিত রানীশংকৈল ডিগ্রি কলেজ মাঠে মুক্ত মঞ্চের শুভ উদ্বোধন জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে জাতীয় দলের পাঁচ নারী ক্রীড়াবিদদের সংবর্ধনা গোপালগঞ্জে নানান আয়োজনের মধ্য পালিত হলো পহেলা বৈশাখ
শিবগঞ্জে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে আমগাছ কর্তনের অভিযোগ

শিবগঞ্জে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে আমগাছ কর্তনের অভিযোগ


শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে একটি বাগানের প্রায় দশটি আমগাছ কেটে দিয়েছে প্রতিপক্ষরা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মনাকষা ইউনিয়নের পারচৌকা রাঘববাটি পুঠিমারী বিলে। শনিবার দুপুরে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চৌকা পাতিয়া বিলের চৌকা মৌজায় আশি^না ও খিরসাপাত জাতের দশটি গাছ কেটে মাটিতে পড়ে আছে। ঝড়ে গেছে আমগুলো। এছাড়া ছোট ছোট পাট গাছগুলো নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। পূর্ব শত্রুতার জেরে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে প্রতিপক্ষরা দাবি ভুক্তভোগী নারীর। ভুক্তভোগী নারী সেরিনা বেগম (৫৩) উপজেলার দূর্লভপুর ইউনিয়নের পিয়ালীমারী গ্রামের হারুন অর রশিদের স্ত্রী। তিনি জানান, প্রায় ১০ বছর ধরে প্রতিপক্ষ পারচৌকা গ্রামের মৃত রফিকের ছেলে আবদুল মালেক, মৃত নুর ইসলাম পারুলের ছেলে নাজমুল ও পারভেজের সঙ্গে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। গত তিন বছর থেকে তারা বিভিন্নভাবে হয়রানী ও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত রোববার কোন এক সময় তারা জমির আশি^না ও খিরসাপাত আমগাছ কেটে সাবাড় করে দিয়েছে। জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ থাকতেই পারে। কিন্তু আমগাছ কর্তনের বিষয়টি মেনে নেয়া যায়না। এ ঘটনায় তদন্ত করে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি। একই সঙ্গে গাছ কর্তনের ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এর আগে শনিবার জমিতে হালচাষে প্রতিপক্ষরা বাঁধা দেওয়ায় থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন ভুক্তভোগী সেরিনা বেগম। এ বিষয়ে প্রতিপক্ষ আবদুল মালেক ও নাজমুলের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তাদের মন্তব্য মেলেনি। শিবগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হরেন্দ্র নাথ জানান, জমিতে হালচাষে বাঁধা দেওয়ার ঘটনাটি তদন্ত চলছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শিবগঞ্জ থানার ওসি চৌধুরী জোবায়ের আহাম্মদ জানান, আমগাছ কর্তনের ঘটনায় কেউ অভিযোগ দেয়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com