বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ১০:৫১ অপরাহ্ন

শিবগঞ্জে লকডাউনে জনশুন্য রাস্তা ও বাজার

শিবগঞ্জে লকডাউনে জনশুন্য রাস্তা ও বাজার

মোহা: সফিকুল ইসলাম, শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) সংবাদদাতা:

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে শিবগঞ্জেও শুরু হয়েছে কঠোর লকডাউন। মঙ্গলবার সকাল থেকে শুর হওয়া লকডাউনে শিবগঞ্জ উপজেলার রাস্তার মোড়ে মোড়ে পুলিশি তৎপরতায় রাস্তায় পরিবহণ শূণ্য দেখা গেছে। প্রতিটি রাসÍার মোড়ে মোড়ে পুলিশ চেকপোস্ট বসানোর পাশাপাশি টহল দিয়ে মানুষকে ঘরে রাখতে পুলিশ কাজ করছে বলে জানিয়েছেন শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ফর্দি হোসেন। তিনি আরো জানান উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে চেকপোস্ট বসিয়ে প্রবেশ বা চলাচলে বাধা দেয়া হচ্ছে। জরুরি সেবা ছাড়া ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে সকল যানবহন।

 

এদিকে কঠোর লকডাউন ঘোষণার পরপর ইউনিয়ন পর্যায়ে মাইকিং করে জানিয়ে দেয়া হয়। লকডাউন চলাকালে উপজেলার মনাকষা, বিনোদপুর, শ্যামপুর, দূলভপুর,কানসাটসহ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে চলছে সচেতনতামূলক মাইক প্রচারণা।

 

এদিকে সরজমিনে লকডাউন চলাকালে দেখা গেছে, কানসাট মোড়, মনাকষা ঈদগাহ মোড়, শিবগঞ্জ মনাকষা মোড়, বিনোদপুর কলেজ মোড়, শ্যামপুর বাজার মোড়সহ বিভিন্ন মোড়ে সব সময় যানজট লেগে থাকলে আজকে তেমন কোন গাড়ি লক্ষ্য করা যায়নি। সচেতনতা বা ভয়, যাই হোক না কেন মানুষ ঘরে থাকছে। মাঝে মধ্যে দু-একটা অটো রাস্তায় চলাফেরা করছে, তাও ভয়ে ভয়ে। কানসাট বাজারে পুলিশ ও গ্রাম পুলিশের ব্যাপক তৎপরতা রয়েছে। রয়েছে নির্বাহী ম্যাজিষ্টেটের ভ্রাম্যমাণ আদালত।
লকডাউনে রাস্তায় চলাচলকারীদের জিজ্ঞেস করা হয়। কোথায় যাবেন, কি কাজ আছে? এসব প্রশ্নের সঠিক উওর দিতে না পারলে যেতে দেয়া হচ্ছেনা। ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে বাড়ি। তবে জরুরি সেবায় সম্পৃক্ত ব্যক্তিরা অবাধে চলাচল করতে পারছেন।

 

শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ফরিদ হোসেন জানান, কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন করার লক্ষ্য পুলিশের ৩টি টিম শিবগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় টহলরত রয়েছে। টহলের পাশাপাশি বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে অবস্থানও করছে। এছাড়াও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম সার্বক্ষণিক দায়িত্বের রয়েছে।
অন্যদিকে, শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাকিব আল রাব্বী জানান, লকডাউন ঘোষণার পরপর উপজেলার বিভিন্ন বাজারের দোকান-পাট বন্ধ করে দেয়া ঘোষণা দেয়া হয়েছে। লকডাউন চলাকালে পুলিশ-বিজিবি টহল রয়েছে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া সাধারণ মানুষকে বাড়িতেই অবস্থান করতে বলা হয়েছে। এছাড়া, ফামের্সী, পণ্যবাহী যানবহন, কাঁচা সবজি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে দোকান নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে খোলা রাখতে বলা হয়েছে।

 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান বলেন, যেহেতু দীর্ঘদিন ধরে করোনাকালীন সময় অতিবাহিত হচ্ছে, তাই জনসাধারণ আগের তুলনায় অনেক বেশি সচেতন। জেলা জুড়ে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন করতে পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। জেলা পুলিশ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে গেলে ঘরে ফেরত পাঠাচ্ছে। তবে জরুরি সেবা, পন্যবাহী যানবহন ও আম পরিবহনের সাথে সংশ্লিষ্ট পরিবহন কঠোর লকডাউনের আওতায় থাকবে না।

 

উল্লেখ্য, উপজেলা পর্যায়ে ৬ জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বিশেষ লকডাউন বাস্তবায়নে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছে।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com