শুক্রবার, ১৮ Jun ২০২১, ১২:২৯ পূর্বাহ্ন

শিবগঞ্জে আদালতের আদেশ অমান্য করে আম ফল ভেঙ্গে নিয়েছে প্রতিপক্ষরা

শিবগঞ্জে আদালতের আদেশ অমান্য করে আম ফল ভেঙ্গে নিয়েছে প্রতিপক্ষরা

মোহা:সফিকুল ইসলাম, শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) সংবাদদাতা:

শিবগঞ্জে আদালতের আদেশ অমান্য করে ১৩টি গাছের আম ফল ভেঙ্গে বিক্রী করেছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। ঘটনাট ঘটেছে শিবঘঞ্জ উপজেলার মনাকষা ইউনিয়নের ঠুঠাপাড়া বৈদ্যনাথপুর মাঠে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত চাঁপাইনবাবগঞ্জের মামলা সূত্রে জানা গেছে গত ২৮-০৯-২০২০ খ্রী তারিখে জমা জমিসংক্রান্ত ঘটনার জের ধরে প্রায় ১৮০শতক জমির ১৪৪ধারা জারির জন্য মনাকষা ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামরে মৃত তামসুরুদ্দিনের ছেলে সেলিশ রেজা মাস্টার আদালতে আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ১৪-১০-২০২০খ্রী: তারিখে আদালত সে জমির ওপর ১৪৪ ধারা জারি করেন। মামলা নং ৫৭/পি ২০২০খ্রী: (শিবগঞ্জ) ।

কিস্তু প্রতিপক্ষ তারাপুর মিস্ত্রী পাড়া গ্রামের এনসান আলির ছেলে রমজান আলি গত ৯ জুন আদালতের আদেশ অমান্য করে তার নিজস্ব লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে ১৩টি আমগাছের প্রায় ৬০মন আম ফল পেড়ে বিক্রী করে দেয়। গত ০৯জুন সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে রমজান ও তার ১০/১২জন লোক গাছ থেকে আমফল ভাঙছে এবং ক্যারেটে আমগুলি প্যাকেজ করছে। কয়েকজন সেখানে বসে আছেন। মিডিয়ার কর্মী দেখেই তারা বিভিন্ন স্থানে ফোন করতে শুরু করে।

 

এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষ রমজান আলি জানান আমার আইনজীবি মৌখিকভাবে আম ভাঙতে বলেছেন। তাই আম ভাঙছি। তিনি আরো জানানা আমারা আদালতে আবেদন করায় আদালত এ জমির ওপর ১৪৫ধারা জারি করেছেন। কিন্তু তিনি কোন ডকুমেন্টস দেখাতে পারেননি। বসা থাকা লোকজনের মধ্যে তারাপুর মিস্ত্রী পাড়ার ফটিক উদ্দিন, আতাউর রহমান,আবুতাহের ও আমিরুল ইসলাম জানান, দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে আমরা ভাঙ্গা আমগুলি নিজ দায়িত্বে নিয়েছি এবং আম বিক্রী করে টাকা জমা রাখা হবে। কার নির্দেশে তারা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জানতে চাইলে তারা জানান, আমরা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

 

অপর দিকে মামলার বাদী সেলিম রেজা জানান,তারা রমজান আলির ভাড়াটিয়া বাহিনী । জোর করে তারা আমফল ভাঙতে গেছে। তিনি আরো জানান যদি কোন মামলা করি বা প্রশাসনকে জানাই তবে জীবনে মেরে ফেলবে বলে হুমকী দিয়েছে।

 

সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য সমির উদ্দিন জানান ,আমার জানা মতে ওই জমির ওপর আদালতের নিষেধাঞ্জা জারি করা আছে। ওই জমিতে প্রশাসন ছাড়া অন্য কেউ যেতে পারবে না। তিনি আরো জানান এ ব্যাপারে তারা আমাকে কিছু বলেনি।

 

শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ফরিদ হোসেন জানান,ঘটনাটি আমার জানা নেই । তবে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলে সমাধান না হওয়া পর্যন্ত কেউ ্ওই জমিতে যেতে পারবে না। তবে এ ব্যাপারে আমাকে কেউ জানায়নি। অভিযোগ পেলে আইননুগ প্রয়োজণীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

 

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com