বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০৮:০৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বরিশাল হাসপাতালে  টাকা না দেয়ায় মেলেনি অক্সিজেন, ছটফট করে মারা গেলেন রোগী হেলেনা জাহাঙ্গীরের ২ সহযোগী আটক অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ের সংশ্লিষ্টরা ভ্যাকসিন না নিলে বেতন বন্ধ টিকা বাণিজ্যে অভিযুক্ত ‘হুইপ পোষ্য’কে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত হিলিতে তুলা কারখানায় আগুনে প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি গাইবান্ধা গ্রাম পুলিশরা মানহীন সাইকেল গ্রহণে অস্বীকৃতি  অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে প্রথম জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন জগন্নাথপুরে করোনা উপসর্গে চার ঘণ্টার ব্যবধানে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু ২৬০০ ডোজ টিকা বিক্রি করেন হুইপের ভাই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি জয় নিয়ে যা বললেন মাহমুদউল্লাহ
বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অব্যবস্থাপনার অভিযোগ

বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অব্যবস্থাপনার অভিযোগ

পাটগ্রাম (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি :

লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে নানা ধরণের অব্যবস্থাপনার অভিযোগ উঠেছে।
করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ পরিস্কার- পরিচ্ছন্নতা না রাখা ও নানা ধরণের অব্যবস্থাপনার কারণে এ বন্দর দিয়ে গাড়ি প্রবেশের সংখ্যা অর্ধ্যেকে নেমে এসেছে। ময়লা- আর্বজনার ভাগাড়, বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা, পণ্য রাখার শেড সমূহে পঁচা দূর্গন্ধ, ম্যানহোলের ঢাকনা নেই, ধুলো- বালু রোধে পানি না দেয়া, সড়কে গর্ত, ওয়ে ব্রীজে যানজট, শৌচাগার ব্যবহার অনুপযোগীসহ বন্দর জুড়ে অপরিচ্ছন্নতার কারণে গাড়ি চালক, বন্দর ব্যবহারকারি ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা দাবি করেন।

বরাত এন্টার প্রাইজের স্বত্ত¡াধিকারী রেজাউল করিম ও তারকা ট্রেডিংয়ের আমদানিকারক সাদিকুর রহমান মানিক বলেন, স্থলবন্দরে প্রবেশের গেটের সামনে বড় বড় গর্ত। অনেক ম্যানহোলের ঢাকনা নেই। ফলে ভারত থেকে পণ্য নিয়ে আসা গাড়ি গর্তে পড়ে টায়ার, টিউব ফেটে যায়। এসব বিষয়ে আমদানি- রফতানিকারক, সিঅ্যান্ড এফ এজেন্ট, শ্রমিকরা বন্দর কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার জানালেও তাঁরা কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।
ভারতের ভোটপাটি থেকে আসা ট্রাক চালক হিরেন রায় ও চ্যাংরাবান্ধা বন্দর থেকে পাথর নিয়ে আসা চালক শাহীন আলম বলেন, বুড়িমারী স্থলবন্দরের গেট থেকে শেডে প্রবেশে সড়কের বেহাল অবস্থা। খানা- খন্দকে ভরা। প্রায়ই ট্রাকের চাকা নষ্ট হয়ে বিকল হয়ে পড়ে। আমাদের সমস্যা হয়।

 

সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট কর্মচারী অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আইয়ুব আলী সরকার বলেন, রোদ উঠলে ধুলায় আচ্ছন্ন। সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা। পঁচা দূর্গন্ধে কাজ করা যায়না। আমাদের অনেক কর্মচারী অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে। উপ-পরিচালককে জানালে তিনি সমাধান না করে আমাদের সাথে রুঢ় আচরণ করেন।

 

 

বুড়িমারী শ্রমিক কল্যাণ ফেরডারেশনের সভাপতি সফর উদ্দিন বলেন, বন্দরের শেড গুলো থেকে পণ্য লোড- আনলোড করা কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভুষি, ভুট্টা, সয়াবিন ও মাছের খাদ্য পঁচে গলে বিকট গন্ধে শ্রমিকদের জীবন বেড় হয়ে আসার অবস্থা। শ্রমিকরা কি মানুষ না। বন্দরের পরিচালককে বললেও তিনি কর্ণপাত করেন না।

 

এ ব্যাপারে বন্দরের উপ- পরিচালক মোহাম্মদ মাহফুজুল ইসলাম ভূঁঞা বলেন, আমরা তো এগুলো পরিস্কার করতেছি। এত পরিমাণ মালামাল লোড- আনলোড হচ্ছে বৃষ্টি, বাদল মিলে সব একাকার। প্রতিনিয়ত কাজ করছি। চেষ্টা করছি। ইদানিং খৈল, ভুট্টা বেশি আসছে। বৃষ্টিতে ভিজলে এগুলো গন্ধ ছড়ায় আরকি। হ্যাঁ এগিলি হয়, ঢাকনা- টাকনা থাকে না। আমরা লিখেছি। কিছু মেরামত করা হচ্ছে। ঢাকনা ছিল ট্রাকের চাপে ভেঙ্গে গেছে।
কাস্টমস্ সহকারি কমিশনার (এসি) কেফায়েত উল্যাহ মজুমদার বলেন, ব্যবস্থাপনার ব্যাপার গুলো বন্দর কর্তৃপক্ষ দেখে থাকে। অব্যবস্থাপনার বিষয়ে আপনারা তাঁদের সাথে কথা বলতে পারেন।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com