বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০৯:৪১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বরিশাল হাসপাতালে  টাকা না দেয়ায় মেলেনি অক্সিজেন, ছটফট করে মারা গেলেন রোগী হেলেনা জাহাঙ্গীরের ২ সহযোগী আটক অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ের সংশ্লিষ্টরা ভ্যাকসিন না নিলে বেতন বন্ধ টিকা বাণিজ্যে অভিযুক্ত ‘হুইপ পোষ্য’কে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত হিলিতে তুলা কারখানায় আগুনে প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি গাইবান্ধা গ্রাম পুলিশরা মানহীন সাইকেল গ্রহণে অস্বীকৃতি  অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে প্রথম জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন জগন্নাথপুরে করোনা উপসর্গে চার ঘণ্টার ব্যবধানে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু ২৬০০ ডোজ টিকা বিক্রি করেন হুইপের ভাই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি জয় নিয়ে যা বললেন মাহমুদউল্লাহ
অধ্যক্ষ এনামুল হক ও আমেনা খাতুন দাম্পতির বাসায় বাচ্চা ফুটিয়েছে বুলবুলি

অধ্যক্ষ এনামুল হক ও আমেনা খাতুন দাম্পতির বাসায় বাচ্চা ফুটিয়েছে বুলবুলি

লেখক মোঃ হায়দার আলী, গোদাগাড়ী রাজশাহী :

রাজশাহীর গোদাগাড়ী পৌরসভার গোদাগাড়ী সরকারি স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মোঃ এনামুল হক এবং গোদাগাড়ী মহিলা ডিগ্রী কলেজের সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আমেনা খাতুন দাম্পতির বাড়ীতে একজোড়া বুলবুলি বাসা বেধেছে। বাড়ির বারান্দায় একটি ক্রিসমাস্ক ট্রির মধ্যখানে বাসা বেধে স্থায়ীভাবে বসবাস করছে এবং ৪ বার বাচ্চাও ফুটিয়েছে। এখন রয়েছে তিনটি ফুটফুটে বাচ্ছা। অবসারপ্রাপ্ত দাম্পতি বুলবুলি গুলির সাথে ভালই সময় কাটাচ্ছেন। বাড়িতে অতিথি আসলেও পাখি গুলি ভয় পায় না। সবাই বেশ মজা করে ছবি তুলে, ভিডিও করে ফেসবুকে পোষ্ট করেন। লিখেন অনেক সুন্দর সুন্দর কথা।

 

আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম তাঁর গানে বলেছেন-‘বাগিচায় বুলবুলি তুই ফুল শাখাতে দিস নে আজি দোল’। আর শিশুরা মহানন্দে ছড়া কাটে-
বুলবুলি গো বুলবুলি
আয় না খেলি চুল খুলি।
গাছের ফাঁকে লুকিয়ে থেকে
উদাস করিস আমায় ডেকে।
তোর গলার মিষ্টি সুরে
মন যে আমার কেমন করে।
আয় না কাছে বুলবুলি
গল্প করি মন খুলি।

 

বাংলায় বুলবুলি, বুলবুলির ইংরেজি নাম REDVENTED BULBUL or COMMON BULBUL (রেডভেন্টেড বুলবুল বা কমন বুলবুল)। বৈজ্ঞানিক নাম: Pycnonotus cafer) লালপুচ্ছ বুলবুলি বা কালচে বুলবুলি Pycnonotidae (পাইকনোনোটিডি) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত Pycnonotus (পাইকনোনোটাস) গণের এক প্রজাতির অতি পরিচিত দুঃসাহসী এক পাখি। বুলবুলি হিসেবে এরা সুপরিচিত। পাখিটি পূর্ব, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার স্থানীয়।
বুলবুলি আমাদের অতি পরিচিত পাখি। আমাদের কাছের পাখিগুলোর মধ্যে অন্যতম। ওদের বসবাস মানুষজনের গা ঘেঁষে। তাই ঢাকা শহর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত গ্রামের যে কোনো উন্মুক্ত প্রান্তরে এই পাখির সঙ্গে আমাদের দেখা হয় হরহামেশাই।

গেরস্থ বাড়ির উঠোন কিংবা বাগানে স্বাধীনাভাবে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় ওদের। দেখা যায় শহুরে বাড়ির আশপাশেও। আমাদের দেশে এমন কোনো বাগান নেই যেখানে বুলবুলি দেখা যায় না। ওরা গভীর অরণ্য পছন্দ করে না মোটেও। থাকছে পছন্দ করে মানুষের খুব কাছে।

 

স্ত্রী-পুরুষ একই রকম দেখতে। মাথা ও গলা চকচকে কালো। ওদের মাথার ওপর ছোট্ট কালো ঝুঁটি আছে। ঝুঁটিটি দেখলে মনে হয় যেন চুলে কদম ছাঁট দেয়া হয়েছে। কারো কারো আবার ঝুঁটি দেখা যায় না।
সারা শরীর এবং ডানা পাটকিলে রঙের। ডানা, পিঠের ওপরের অংশ ও বুকের প্রতিটি পালকের আগায় খুব সরু সাদা পট্টি নজরে পড়ে। লেজের ডগা পাটকিলে। এই পাটকিলে রঙ গাঢ় হয়ে এসে শেষপ্রান্তে সাদা। তল পেট ও লেজের তলের অংশ ফিকে সাদা। ডানারও কতোগুলো পালকের প্রান্তদেশ সাদা। তলপেটের শেষে লেজের তলা টুকটুকে লাল। চোখের ভেতরের অংশ গাঢ় পিঙ্গল। চঞ্চু ও পায়ের রঙ কুচকুচে কালো। চঞ্চু ছোট ও শক্ত।


বুলবুলিদের খাবার মেন্যুতে আছে বিভিন্ন রকম ছোট ছোট ফল, কিট-পতঙ্গ এবং ফুলের মধু। পুঁইশাকের পাকা দানা ও মটরশুটি ওদের খুব প্রিয় খাবার। তাই কৃষকের ভরা জমিতে এসব সবজি খেতে ওদের দলে দলে হামলা করতে দেখা যায়। তাল-খেজুরের রসও ওদের বেশ প্রিয়। শীতকালে খেজুর গাছে ঝোলানো রসের হাঁড়িতে বসে প্রায়ই আরাম করে রস চুরি করে খেতে পছন্দ করে ওরা।
সামাজিক পাখি বুলবুলি। তাই জোড়ায় জোড়ায় বা দল বেঁধে চলতে পছন্দ করে ওরা। ওদের ভালোবাসা বেশ গভীর। জোড়া ছাড়া ওদের দেখা যায় না বললেই চলে। বেলা শেষের গোধূলি লগনে বাগানের কোনো ঝাঁকড়া গাছে বা পুকুর পাড়ের কোনো ঝোপের মধ্যে এক সঙ্গে হয়ে কিচিরমিচির শব্দে ওরা পাড়া মাতিয়ে তোলে।

 

গোদাগাড়ী পৌরসভার গোদাগাড়ী সরকারি স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মোঃ এনামুল হক বলেন, আমার বাসায় এরা স্থায়ীভাবে বসবস শুরু করেছে। আমাদের পরিবারের সদস্যদের শুধু নয় অতিথি আসলেও তারা ভয় পায় না। এ পর্যন্ত চার বার ডিম দিযে বাচ্চা ফুটিয়েছে। প্রতিবার ২/৩ টি ডিম পাড়ে, কোন সময় ১ টি বাচ্চা মারা যায়, একবার দুটি ফেুটে একটি বাচ্চা মারা যায়, গন্ধ হওয়র ভযে সেটি সরিয়ে ফেলি কিন্তু বুলবুলি গুলি ওই বচ্চাটির সেবা, খাবার কম দেয়, আমি আমার স্ত্রী ওই বাচ্চটি নিয়মিত খাবার দিয়ে বড় করে তুলি পড়ে ছেড়ে দি। ওই পাখি প্রেমিক আরও বলেন, আমার বাড়ী পাশে আম বাগানে

 

শেষ বিকেলে প্রায় ৩০ থেকে ৪০টি বুলবুলিকে আমি দল বেঁধে এভাবে খেলতে দেখেছি বহুবার। বাগানটি সামান্য দূরে দাঁড়িয়ে আমি ওদের খেলা দেখেছি মুগ্ধ দৃষ্টিতে। তিনি আরও বুলবুলি খুবই চঞ্চল স্বভাবের পাখি। স্থির হয়ে যেন বসতেই পারে না। তার ওপর আবার বেশ ঝগড়াটে এবং লড়াইবাজও বটে। এ কারণে এক সময় সারা ভারতবর্ষে বুলবুলি পালার রেওয়াজ ছিলো। বাংলাদেশেও এক সময় কক ফাইটের মতো বুলবুলিরও লড়াই দেখা যেতো। এখন ওসব আর চোখে পরে না।

 

বুলবুলি বেশ সাহসী পাখি। শত্রুর দেখা পেলে তাকে ছেড়ে কথা কয় না। শক্ত নখর নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে শত্রুর ওপর। এই পাখি আবার বেশ ভালোভাবে পোষ মানে। হয় প্রভু ভক্ত।
উত্তরা ব্যাংক, মহিশালবাড়ী বাজার শাখার ম্যনেজার মোঃ আমিনুল ইসলাম জানান, আমি অধ্যক্ষ সাহেবে বাসায় আমি গিয়েছিলাম। বুলবুলি ৩ টি বাচ্চা নিয়ে বসে আছে, খুব সুন্দর লাগছে, আমি ছবি তুলেছি। ছবি তোলার সময় মা বুলবুলিটি প্রথমে পালিয়ে যায়, কিছু পরে আবার আসে তখন সুন্দরভাবে ছবি তুলি, ভিডিও করি।

 

মোসাঃ আমেনা খাতুন বলেন, বুলবুলি গুলি যেভাবে আমরা দেখভাল করি যেন ওরা আমাদের পরিবারের সদস্য। সকাল বেকাল নাস্তার পর চা খেতে খেতে ওদের আনাগুনা, শব্দ, খেলা করা আমার খুব ভাল লাগে।
পাখি দুটোকে এতো সুন্দর পোষ মানেছে, ওরা এখান থেকে ওরা অন্য স্থানে যেতে চাই না।
বুলবুলি খুব ভালো উড়তে পারে না বলে একটানা বেশি দূর উড়ে যায় না। তবে ওদের ওড়াটা বেশ দ্রুত। ওড়ার সময় ডানার ঝাপটার শব্দ বেশ স্পষ্ট শোনা যায়। ওড়াউড়ি করার চেয়ে সারাক্ষণ ওরা গাছের ডালে ডালে ঘুরে বেড়াতেই অভ্যস্ত। মাটিতে ভালো করে হাঁটতে পারে না বলে মাটিতে নামে না বললেই চললে। কোনো খাবার মাটি থেকে তুলে নেয়ার প্রয়োজন হলেই কেবল মাটিতে নেমে আসে।

 

বুলবুলির গলার আওয়াজ বেশ আকর্ষণীয় ও স্পষ্ট। ওরা গান গায় না। তবে সারাদিনই বিরামহীনভাবে মিষ্টি এবং সুরেলা কণ্ঠে ডাকাডাকি করে ঘুরে বেড়ায় গাছের ডালে ডালে।

 

ওদের প্রজননকাল বর্ষা মৌসুম। এ সময় কোনো ঝোপ বা ছোট গাছের ডালে শুকনো ঘাসের গোড়া, চুল, শুকনো পাতা বা গাছের ছাল দিয়ে বাসা তৈরি করে। বাসাটি দেখতে বাটির মতো। এ বাসায় ২ থেকে ৪টি ডিম পাড়ে। ডিমের রঙ গোলাপি সাদা; তার ওপর বাদামির ছোপ থাকে। ডিম ফোটানো এবং বাচ্চা প্রতিপালনের কাজ পুরুষ স্ত্রী দুজনে মিলেই করে।

 

কাক, চড়ুই, শালিকের মতো বুলবুলিও আমাদের আঙিনার পাখি। আমরা সকালে ঘুম ভেঙে উঠে বাড়ির উঠোনের গাছে গাছে বুলবুলির নাচন দেখে মুগ্ধ হই। আমাদের প্রকৃতিতে ওরা মনের আনন্দে ঘুরে বেড়ায়। এ দেশে ওরা বেশ ভালোই আছে।

 

শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত দেশে এমন কোনো মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না যে বুলবুলি পাখি চেনে না। শিল্প-সাহিত্য-কবিতা-গান-ছড়ায় সেই আদি যুগ থেকে বার বার উঠে এসেছে এই পাখির নাম।

 

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com