মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১০:৫৮ অপরাহ্ন

ইতিহাসে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র কামারুজ্জামান হেনা 

ইতিহাসে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র কামারুজ্জামান হেনা 

লেখকঃ মোঃ হায়দার আলীঃ

নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণকে বাংলাদেশের ‘বিশাল অর্জন’ বলে জানিয়েছেন বিশ্ব ব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি মার্সি টেম্বন। গত শনিবার সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন অংশীদার।

আমরা এই সেতুর গুরুত্ব বুঝতে পারি। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষ ব্যাপকভাবে অর্থনৈতিক সুবিধা পাবে। পদ্মা সেতুর ফলে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। ভ্রমণের সময় কমে আসবে। কম সময়ে কৃষক খামারে উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণ করতে পারবেন। সব মিলিয়ে পদ্মা সেতু এই অঞ্চলের সমৃদ্ধি বয়ে আনবে এবং কমাবে দারিদ্র্যও।
পদ্মা সেতু উদ্বোধন হওয়ায় তিনি আনন্দ প্রকাশ করে বলেন, এ সেতুর কাজ শেষ হওয়ায় বাংলাদেশ লাভবান হবে।
 আবাসিক প্রতিনিধিকে হাস্যোজ্জ্বল দেখাচ্ছিল।
পদ্মা সেতুতে অর্থায়নে বিশ্বব্যাংক চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলে পিছু হটেছিল। এ নিয়ে দীর্ঘ টানাপড়েনের পর সরকার নিজস্ব অর্থায়নে এই সেতু নির্মাণের পথে এগিয়ে যায়। ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকায় নির্মিত সেই সেতুর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এ সম্পর্কে লিখার জন্য, তথ্য উপাত্ত নিয়ে ল্যাপটপ ওপেন করলাম । এমন সময় রেডিও, টেলিভিশন, জাতীয়, স্থানীয়, অনলাইন পত্র পত্রিকায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানা গেল, বাংলাদেশের রাজনীতিতে যে কজন ক্ষণজন্মা মানুষ স্বীয় প্রতিভা ও কর্মগুণে খ্যাতি অর্জন করেছেন এবং বাঙালি জনজীবনে নিজের আসন পাকাপোক্ত করতে সমর্থ হয়েছেন তাঁদের মধ্যে জাতীয় নেতা শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান (১৯২৩-১৯৭৫) একজন স্মরণীয় ব্যক্তিত্ব। রবিবার (২৬ জুন) তাঁর ৯৯তম জন্মদিন।
১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে তাঁর অবদানের কথা জাতি চিরদিন শ্রদ্ধার সঙ্গে মনে রাখবে। ওই সময় মুজিবনগর সরকার গঠন এবং যুদ্ধ পরিচালনায় তাঁর দক্ষতা ও যোগ্যতা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখে। দীর্ঘ ৩৩ বছরের রাজনৈতিক জীবনে তিনি কখনোই নির্বাচনে পরাজিত হননি এবং তিনি সর্বদাই জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করেছেন।
দেশে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে রাজশাহী মহানগর। এরআগে থেকে শিক্ষা ও সিল্ক সিটির খ্যাতিও রয়েছে। বাতাসে ধুলাবালির উড়ন্ত কণা কম থাকায় স্বাস্থ্যকর শহর বলেও আওয়াজ দিচ্ছেন। এই শহরকে আরো সৌন্দর্যময় করতে এবারে নান্দনিক রঙে পদ্মার পাড়ে ঝুলন্ত ব্রিজসহ নানা স্থাপনা সেজে উঠছে। রাজশাহী ছোট শহর হলেও এখানে বিনোদনের জায়গার অভাব নেই। যা পদ্মা নদীকে ঘিরেই গড়ে উঠেছে বিনোদন কেন্দ্র।  করোনা পরিস্থিতিতেও সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে  রাজশাহী শহরের ব্যাপক উন্নয়নসহ মুজিববর্ষের নতুন রূপ পেয়েছে ‘  বর্তমান মেয়রের নেতৃত্বে রাজশাহী শহরের ব্যপক উন্নয়ন হচ্ছে। মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান আর কেউ তিনি হলেন, চার নেতার এক নেতা কামারুজ্জামান হেনা ও জাহানারা বেগমের পুত্র। তাই তো লিখার থিম পরিবর্তন করে আল্লাহকে স্মরন করে পাঠকদের জন্য কামরুজ্জামান সম্পর্কে লিখার জন্য তথ্য উপাত্ত নিয়ে ল্যাপটপে লিখা শুরু করলাম।
১৯৫১ সালে এএইচএম কামারুজ্জামান জাহানারা বেগমের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তার স্ত্রী বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলার চামরুল গ্রামের আশরাফউদ্দিন তালুকদারের মেয়ে জাহানারা । আশরাফ উদ্দিন তালুকদার ঐ অঞ্চলের জোতদার হিসেবে পরিচিত ছিলেন। পারিবারিক জীবনে  কামরুজ্জামান ৬ সন্তানের পিতা তার বড় ছেলে এ এইচ এম খাইরুজ্জামান লিটন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের বর্তমান মেয়র । শহীদ এএইচএম কামরুজ্জামানের জন্ম ও বেড়ে ওঠা সম্রান্ত ও রাজনৈতিক পরিবারে।
 ১৯২৩ সালের ২৬ জুন বর্তমান নাটোর জেলার বাগাতিপাড়া উপজেলার মালঞ্চি রেল স্টেশন সংলগ্ন নূরপুর গ্রামে তার জন্ম।
বাবা আবদুল হামিদ ও মা মোছা. জেবুন্নেছা। তার দাদা ছিলেন রাজশাহী অঞ্চলের গুলাই-এর জমিদার ও স্বনামধন্য সমাজসেবী হাজী লাল মোহাম্মদ।
আট ভাই ও চার বোনের মধ্যে কামরুজ্জামান ছিলেন সবার বড়। তাই তার নাম রাখা হয়েছিল হেনা। হয়তো তারা এমনটা ভেবেছিলেন যে, বড় হয়ে হাসনাহেনার মতোই সৌরভ ছড়াবে পরিবারের এই সন্তানটি।  সেই হিসেবে বলাই যায়, কামরুজ্জামান ‘হাসনাহেনা’র মতোই সৌরভ ছড়িয়েছেন। তার সাক্ষী আজকের স্বাধীন বাংলাদেশ। তার ব্যাপ্তি আরও বহুদূর পৌঁছাতে পারতো। কিন্তু তা হতে দেয়নি একদল বিপথগামী সৈন্য; যারা রাতের আঁধারে তার প্রাণবায়ু ছিনিয়ে নেয়।
এএইচএম কামারুজ্জামান ছিলেন পারিবারিক ভাবে রাজনীতি সচেতন। তার দাদা হাজি লাল মোহাম্মদ সরদার কংগ্রেস রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তবে ওহাবী আন্দোলনের সাথেও তার সম্পৃক্ততা ছিলো বলে জানা যায়। এ কারণে কংগ্রেস ও প্রথম সারির মুসলিম লীগ নেতাদের সাথে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিলো। হাজী লাল মোহাম্মদ দু’বার অবিভক্ত বাংলার লেজিসলেটিভ কাউন্সিলের সদস্য (এম.এল.সি) নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি রাজশাহী এসোসিয়েশন ও বরেন্দ্র একাডেমীর একমাত্র মুসলিম সদস্য ছিলেন। তার পিতা মুসলিম লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন এবং দীর্ঘদিন রাজশাহী অঞ্চলের মুসলিম লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।
তিনি ১৯৪৬ সাল থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত অবিভক্ত বাংলাদেশ ও পরে পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের সদস্য ছিলেন। তাই তার রাজনীতি সম্পর্কে আগ্রহী হওয়া স্বাভাবিক ছিল। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। তিনি ১৯৪২ সালে বঙ্গীয় মুসলিম ছাত্র লীগের রাজশাহী জেলা শাখার সম্পাদক হন । তিনি ১৯৪৩-১৯৪৫ সাল পর্যন্ত বঙ্গীয় মুসলীম ছাত্র লীগের নির্বাচিত সহ সভাপতি ছিলেন।
১৯৫৬ সালে কামারুজ্জামান আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ১৯৫৭ সালে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৬২ ও ১৯৬৫ সালে তিনি দুবার মৌলিক গণতন্র ব্যবস্থায় জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৬৬ সালে তিনি ঐতিহাসিক ৬ দফা আন্দোলনে আত্মনিয়োগ করেন। ১৯৬৭ তিনি সালে নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং বিরোধী দলীয় উপনেতা নির্বাচিত হন।
আইয়ুব খান সরকারের নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ১১ দফা দাবির সমর্থনে ১৯৬৯ সালে তিনি পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে পুনরায় তিনি রাজশাহী থেকে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালে সারা দেশে অস্থির রাজনৈতিক পরিবেশ বিরাজ করতে থাকে। এমন সময় শেখ মুজিব ৫ জন সদস্য বিশিষ্ট দলীয় হাই কমান্ড গঠন করেন। এই হাই কমান্ডের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ছিলেন কামারুজ্জামান।
১৯৭০ সালের নভেম্বরের ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ের পর ত্রাণকার্যে সরকারের অনীহা এবং ডিসেম্বরের নির্বাচনে জয়লাভের পরও আওয়ামী লীগের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করা ইত্যাদি কারণে বাঙালিদের মনে অসহিষ্ণুতা দেখা দেয়। বাঙালিরা তখন শেখ মুজিবের ডাকে অসহযোগ আন্দোলন শুরু করে। এরই প্রেক্ষিতে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তান সরকার নিরীহ-নীরস্ত্র বাঙালি নিধনের উদ্দশ্যে সেনাবাহিনী লেলিয়ে দেয়, যা ইতিহাসে অপারেশন সার্চলাইট নাম পরিচিত। এই কুখ্যাত গণহত্যার সময় পাকিস্তানী বাহিনী শেখ মুজিবকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যায়। কিন্তু তিনি এর পূর্বেই তার দলের নেতা কর্মীদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে বলেছিলেন। তাই তিনি শেখ ফজলুল হক মনি, তোফায়েল আহমেদ ও আরও কয়েকজন নেতাকে নিয়ে বগুড়া হয়ে কলকাতা চলে যান, সেখানে তার সাথে তাজউদ্দিন আহমদ সহ অন্যান্য নেতাকর্মীর দেখা হয়। ওখানে তারা সকলে মিলে সরকার গঠনের সিদ্ধান্ত নেন। আর সবার সিদ্ধান্তে ১৯৭১ এর ১০ এপ্রিল গঠিত হয় প্রথম অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার, এবং ১৭ এপ্রিল কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুরের সীমান্তবর্তী এলাকা বৈদ্যনাথ তলায় (পরবর্তীতে মুজিবনগর) শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই অস্থায়ী সরকার আনুষ্ঠানিক ভাবে যাত্রা শুরু করে।
নবগঠিত মুজিবনগর সরকারে তাকে স্বরাষ্ট্র, কৃষি এবং ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়।কামারুজ্জামান ছিলেন কঠোর পরিশ্রমী ত্রাণ ও পুনর্বাসনের কাজে তিনি মুক্তাঞ্চল, শরণার্থী শিবির ও সীমান্ত এলাকায় গিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করতেন।
যুদ্ধ শেষ হবার পর ১৯৭১ সালের ২২ ডিসেম্বর তিনি অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ও মন্ত্রীবর্গসহ স্বাধীন দেশে ফেরত আসেন। শেখ মুজিব ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি ফিরে এলে সরকার পুনর্গঠিত হয়। সেই পুনর্গঠিত সরকারে তিনি ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন।১৯৭২ থেকে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন কামারুজ্জামান। ১৯৭৩ সালের সাধারণ নির্বাচনে তিনি রাজশাহীর দু’টি সদর গোদাগাড়ি ও তানোর আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৪ সালের ১৮ জানুয়ারি তিনি মন্ত্রিপরিষদ থেকে পদত্যাগ করেন। এ সময় তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।
১৯৭৫ সালে নতুন মন্ত্রিসভায় তিনি শিল্প মন্ত্রীর দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। এ সময় শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক লীগ (বাকশাল) গঠন করলে তিনি বাকশালের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য হন। ১৯৭৫ সালের এই দিনে আওয়ামী লীগের চারজন সিনিয়র নেতা – সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামরুজ্জামানকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে (বর্তমানে জাদুঘর) হত্যা করা হয়। বাংলাদেশের ইতিহাসে ১৫ আগস্ট একটি কলঙ্কজনক ও বেদনাদায়ক অধ্যায়। যার আরেকটি ৩ নভেম্বরের জেল হত্যাকাণ্ড। একটা প্রশ্ন মনে আসে- শেখ মুজিবকে হত্যার প্রায় আড়াই মাস পরে কারাগারে এ চার নেতাকে কেন হত্যা করা হয়েছিল? কারণ হিসেবে বলা যেতে পারে, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব তখন অনেকটা দিশেহারা। চারজন সিনিয়র নেতাসহ অনেকেই কারাগারে এবং অনেকে আত্মগোপনে ছিলেন। বাকি নেতারা প্রকাশ্য কিংবা অপ্রকাশ্যে নতুন রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাকের সঙ্গে সমঝোতা করেন। অনেকে আবার রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় হয়ে যান। এ অবস্থায় স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী দলটির নেতৃত্বকে ‘গলা টিপে’ হত্যা করতেই এই নির্মম হত্যাকাণ্ড চালায় মোশতাক ও তার দোসরেরা। কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে অন্যদের সঙ্গে নৃশংস হত্যার শিকার হন চারজনের অন্যতম এএইচএম কামরুজ্জামান।
বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে তিনিসহ এই ‘চার স্তম্ভ’ই বারবার আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ আমাদের স্বাধীনতা। একাত্তরের ২৬ শে মার্চের প্রথম প্রহরে স্বাধীনতা ঘোষণার পর ধানমন্ডির ৩২ নম্বর থেকে গ্রেফতার হন বঙ্গবন্ধু। তার স্বপ্ন ছিল
 বাংলাদেশের স্বাধীনতা, পাশাপাশি মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি।  সে লক্ষ্যেই আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পর থেকে ধীরে ধীরে মহান ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের সূচনা করে বাংলার মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে একই মোহনায় দাঁড় করিয়েছিলেন তিনি।
সেই মহান নেতা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাঙালি জাতি যুদ্ধ করেছে। মুক্তিযুদ্ধকালে জেলে থাকার সময় শেখ মুজিবের হয়ে মুক্তিযুদ্ধের দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন এই জাতীয় চার নেতা।
একাত্তরের ১০ এপ্রিল মুজিবনগরে ‘বাংলাদেশ গণপরিষদ’ গঠন করে, সেই পরিষদে ‘স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র’ অনুমোদন করে তারই ভিত্তিতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ গঠন করেন তারা।
প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাচিত হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং উপ-রাষ্ট্রপ্রধান সৈয়দ নজরুল ইসলাম। সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী অর্থমন্ত্রী এবং এএইচএম কামরুজ্জামান স্বরাষ্ট্র ও পুনর্বাসনবিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে ১৭ এপ্রিল শপথ গ্রহণ করেন। তবে বঙ্গবন্ধু কারাগারে থাকায় সৈয়দ নজরুল ইসলাম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন।
পরম নিষ্ঠার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করে তারা ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর প্রিয় মাতৃভূমিকে হানাদারমুক্ত করেন। বিশ্বের মানচিত্রে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে জায়গা করে নেয় বাংলাদেশ।
 সেই স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। আমাদেরও উচিত নিজ নিজ জায়গা থেকে তার হাতকে শক্তিশালী করা। তবেই গড়ে উঠবে ‘সমৃদ্ধ সোনার  বাংলাদেশ’।
লেখক : মোঃ হায়দার আলী
সভাপতি, জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা, 
গোদাগাড়ী উপজেলা শাখা
প্রধান শিক্ষক,
 মহিশালবাড়ী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়
গোদাগাড়ী, রাজশাহী।

শেয়ার করুন .....




© 2018 allnewsagency.com      তত্ত্বাবধানে - মোহা: মনিকুল মশিহুর সজীব
Design & Developed BY ThemesBazar.Com